অভিভাবক ছাড়া বিবাহ কি শুদ্ধ হয়?

জিজ্ঞাসা–২১৬: হুযুর, আসসালামুলাইকুম, হুযুর, আমি বিয়ে করি অনেক বছর আগে, আমাদের একটা মেয়ে আছে, আলহামদুলিল্লাহ। যার ০৫ বছর চলে। আমরা যখন বিয়ে করি তখন আমার শশুর কাজি অফিসে উপস্থিত ছিলেন না। এ ছাড়া একজন বানানো অভিবাবক, ২ জন সাক্ষী , আরও লোকজন ছিলেন। এখন আমার প্রশ্ন হল আমাদের বিয়েটা কি ঠিক ছিল? আমরা যখন বিয়ে করি তখন আমি একজন বেসরকারি চাকুরিজীবী আর আমার বউ সে একজন সরকারি চাকুরীজীবী।–আরাফাত উল্লাহ

জবাব: وعليكم السلام ورحمة الله وبركاته

এক. প্রিয় প্রশ্নকারী ভাই, যদিও দুইজন প্রাপ্তবয়স্ক সমঝদার স্বাক্ষীর সামনে প্রাপ্তবয়স্ক পাত্র ও পাত্রীর একজন প্রস্তাব দিলে এবং অপরপক্ষ তা গ্রহণ করে নিলে ইসলামী শরীয়াহ মোতাবেক বিবাহ শুদ্ধ হয়ে যায়। এ ক্ষেত্রে অভিভাবকের সম্মতি কিংবা উপস্থিতি আবশ্যক নয়, তবে যদি মেয়ে গায়রে কুফুতে বিবাহ করে, তথা এমন পাত্রকে বিয়ে করে, যার কারণে মেয়ের পারিবারিক সম্মান বিনষ্ট হয়, তাহলে বাবা সে বিয়ে আদালতের মাধ্যমে ভেঙ্গে দিতে পারে। যদি কুফুতে বিবাহ করে, তাহলে বাবা এ অধিকার পায় না।

এই হিসেবে আপনারা উভয়ে যেহেতু প্রাপ্তবয়স্ক এবং দুই বা ততোধিক প্রাপ্তবয়স্ক সমঝদার স্বাক্ষীর উপস্থিতিতে বিয়ের ‘প্রস্তাব’ ও ‘প্রস্তাবগ্রহণ’ সম্পন্ন করেছেন, সেহেতু প্রকৃত অভিবাবকের অনুপুস্থিতি কিংবা অসম্মতি সত্ত্বেও আপনাদের বিয়ে ইসলামী শরীয়াহ মোতাবেক শুদ্ধ হয়ে গেছে। দলিল–

عَنْ عَبْدِ اللهِ بْنِ عَبَّاسٍ؛ أَنَّ رَسُولَ اللهِ صلى الله عليه وسلم، قَالَ: الْأَيِّمُ أَحَقُّ بِنَفْسِهَا مِنْ وَلِيِّهَا

হযরত আব্দুল্লাহ বিন আব্বাস রাযি. থেকে বর্ণিত। রাসূল ইরশাদ করেছেন, মেয়ে তার ব্যক্তিগত বিষয়ে অভিভাবকের চেয়ে অধিক হকদার। (মুয়াত্তা মালিক ৮৮৮, সহীহ মুসলিম ১৪২১, মুসনাদে আহমাদ ১৮৮৮, সুনানে আবু দাউদ ২০৯৮, সুনানে দারেমী ২২৩৪, সুনানে তিরমিজী ১১০৮, সুনানে নাসায়ী ৩২৬০, সহীহ ইবনে হিব্বান৪০৮৪, সুনানে দারাকুতনী ৩৫৭৬)

عَنْ أَبِي سَلَمَةَ بْنِ عَبْدِ الرَّحْمَنِ قَالَ: ” جَاءَتِ امْرَأَةٌ إِلَى رَسُولِ اللَّهِ صَلَّى اللهُ عَلَيْهِ وَسَلَّمَ، فَقَالَتْ: يَا رَسُولَ اللَّهِ، إِنَّ أَبِي وَنِعْمَ الْأَبُ هُوَ، خَطَبَنِي إِلَيْهِ عَمُّ وَلَدِي فَرَدَّهُ، وَأَنْكَحَنِي رَجُلًا وَأَنَا كَارِهَةٌ. فَبَعَثَ رَسُولُ اللَّهِ صَلَّى اللهُ عَلَيْهِ وَسَلَّمَ إِلَى أَبِيهَا، فَسَأَلَهُ عَنْ قَوْلِهَا، فَقَالَ: صَدَقَتْ، أَنْكَحْتُهَا وَلَمْ آلُهَا خَيْرًا. فَقَالَ رَسُولُ اللَّهِ صَلَّى اللهُ عَلَيْهِ وَسَلَّمَ: لَا نِكَاحَ لَكِ، اذْهَبِي فَانْكِحِي مَنْ شِئْتِ

হযরত সালামা বিনতে আব্দুর রহমান রাযি. থেকে বর্ণিত। তিনি বলেন, একদা এক মেয়ে রাসূল এর কাছে এল। এসে বলল, হে আল্লাহর রাসূল! আমার পিতা! কতইনা উত্তম পিতা! আমার চাচাত ভাই আমাকে বিয়ের প্রস্তাব দিল আর তিনি তাকে ফিরিয়ে দিলেন। আর এমন এক ছেলের সাথে বিয়ে দিতে চাইছেন যাকে আমি অপছন্দ করি। এ ব্যাপারে রাসূল তার পিতাকে জিজ্ঞাসা করলে পিতা বলে, মেয়েটি সত্যই বলেছে। আমি তাকে এমন পাত্রের সাথে বিয়ে দিচ্ছি যার পরিবার ভাল নয়। তখন রাসূল মেয়েটিকে বললেন, “এ বিয়ে হবে না, তুমি যাও, যাকে ইচ্ছে বিয়ে করে নাও”। (সুনানে সাঈদ বিন মানসূর ৫৬৮, মুসন্নাফে আব্দুর রাজ্জাক ১০৩০৪, মুসান্নাফে ইবনে আবী শাইবা ১৫৯৫৩, দিরায়া ফী তাখরীজি আহাদিসীল হিদায়া ৫৪১

عَنِ ابْنِ بُرَيْدَةَ،عَنْ أَبِيهِ، قَالَ: جَاءَتْ فَتَاةٌ إِلَى النَّبِيِّ صَلَّى اللهُ عَلَيْهِ وَسَلَّمَ، فَقَالَتْ: إِنَّ أَبِي زَوَّجَنِي ابْنَ أَخِيهِ، لِيَرْفَعَ بِي خَسِيسَتَهُ، قَالَ: فَجَعَلَ الْأَمْرَ إِلَيْهَا،فَقَالَتْ: قَدْ أَجَزْتُ مَا صَنَعَ أَبِي،وَلَكِنْ أَرَدْتُ أَنْ تَعْلَمَ النِّسَاءُ أَنْ لَيْسَ إِلَى الْآبَاءِ مِنَ الْأَمْرِ شَيْءٌ

হযরত বুরাইদা রাযি. থেকে বর্ণিত। তিনি বলেন, জনৈক মহিলা নবীজী এর কাছে এসে বলল, আমার পিতা আমাকে তার ভাতিজার কাছে বিয়ে দিয়েছে, যাতে তার মর্যাদা বৃদ্ধি পায়। রাবী বলেন, তখন রাসূল বিষয়টি মেয়ের ইখতিয়ারের উপর ন্যস্ত করেন, [অর্থাৎ ইচ্ছে করলে বিয়ে রাখতেও পারবে, ইচ্ছে করলে ভেঙ্গেও দিতে পারবে] তখন মহিলাটি বললেন, আমার পিতা যা করেছেন, তা আমি মেনে নিলাম। আমার উদ্দেশ্য ছিল, মেয়েরা যেন জেনে নেয় যে, বিয়ের ব্যাপারে পিতাদের [চূড়ান্ত] মতের অধিকার নেই। (সুনানে ইবনে মাজাহ ১৮৭৪, মুসনাদে ইসহাক বিন রাহুয়াহ ১৩৫৯, সুনানে দারা কুতনী ৩৫৫৫)

উল্লেখিত হাদীস ছাড়াও আরো এমন অনেক হাদীস রয়েছে, যা স্পষ্ট ভাষায় প্রমাণ করে যে, বিয়ের ক্ষেত্রে অভিভাবক নয়, প্রাপ্ত বয়স্ক মেয়ের সিদ্ধান্তই চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত। এক্ষেত্রে পিতা বা অভিভাবকের হস্তক্ষেপ কার্যকর হবে না।

দুই. প্রিয় প্রশ্নকারী ভাই, দুইজন প্রাপ্তবয়স্ক অভিবাবকের সম্মতি ছাড়া যদিও বিয়ে করতে পারে, তবে বিবাহের ক্ষেত্রে অভিবাবক অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ বিষয়। পারিবারিক শান্তি ও নিরাপত্তার ক্ষেত্রে এটা বিশেষ গুরুত্ব বহন করে। মনে রাখতে হবে, বিবাহ নিছক ভোগ-বিলাসের উদ্দেশ্যে চঞ্চল মনের ভাবাবেগ তাড়িত কোনো বন্ধন নয়, এটি কোনো ছেলেখেলাও নয় বরং এটি হলো, আল্লাহ তা‘আলা কর্তৃক প্রদত্ত ও নির্দেশিত নারী-পুরুষের সারাজীবনের একটি চিরস্থায়ী পূত-পবিত্র বন্ধন। এজন্য ইসলাম বিবাহের ক্ষেত্রে পাত্র-পাত্রীর মতামতকে ‘চূড়ান্ত মতামত’ হিসাবে সাব্যস্ত করলেও পাশাপাশি অভিভাবকের মতামতকেও সবিশেষ গুরুত্ব দিয়েছে। সুতরাং ছেলে-মেয়ের জন্য বিশেষত মেয়ের জন্য আবশ্যক হলো, অভিবাবকের সম্মতি নিয়ে বিবাহ করা। আর আমাদের উচিৎ, বিবাহের সময় মানুষদেরকে ‘অভিবাবকের অনুমতি’র বিষয়ে উৎসাহিত করা, অভিবাবক ছাড়া বিয়ে করতে নিষেধ করা এবং অভিবাবক থাকার কল্যাণ বর্ণনা করা। আর আপনাদের মত যারা ইতিমধ্যে অভিবাবকের অনুমতি ছাড়া বিবাহ করে ফেলেছে তাদের বিষয়ে কথা হলো, ‘যেহেতু তারা করেই ফেলেছে, তাই তাদেরকে নতুন করে বিবাহ করতে হবে না’। তবে এই অসামাজিক অকৃতজ্ঞতাপূর্ণ ঘৃনিত কাজের জন্য তাদের লজ্জিত হওয়া এবং আল্লাহর কাছে ক্ষমা চাওয়া উচিৎ।
বর্তমান সময়ের অন্যতম শ্রেষ্ঠ সৌদী আলেম শায়খ মুহাম্মাদ সালেহ আলমুনাজ্জিদ অভিবাবক ছাড়া মেয়েদের বিবাহের ক্ষেত্রে বলেছেন,

المسألة اجتهادية .. . .فإنه إذا كان أهل بلد يعتمدون المذهب الحنفي كبلادكم وبلاد الهند وباكستان وغيرها ، فيصححون النكاح بلا ولي ، ويتناكحون على هذا،فإنهم يقرّون على أنكحتهم ، ولا يطالبون بفسخها

র্থাৎ এটি একটি ইজতিহাদি মাসআলা..সুতরাং যে সব দেশের মানুষেরা হানাফী মাজহাবের উপর নির্ভর করে , ওলী (অভিবাবক) ছাড়া বিবাহবে বৈধ মনে করে এবং এভাবে তাদের বিয়ে হয় যেমন, ভারত, (বাংলাদেশ) পাকিস্তান ইত্যাদি, তাহলে তাদের বিবাহের স্বীকৃতি দেয়া হবে । বাতিল করতে বলা হবে না।

والله اعلم بالصواب
উত্তর দিয়েছেন
মাওলানা উমায়ের কোব্বাদী

ন্তব্য

    • মুহতারাম, এভাবে না বলে আপনার কাছে যেখানে এমনটি মনে হয়েছে তা নির্দিষ্ট করে দিলে আমাদের শুধরে নিতে সুবিধা হত। জাযাকাল্লাহু খাইরান।

  1. আমার মায়ের চাচাতো ভাইকে কি বিয়ে করা যাবে?

    • হ্যাঁ, মায়ের চাচাতো ভাইয়ের সাথে বিয়ে জায়েয। কেননা মায়ের চাচাতো ভাই মাহরামের অন্তর্ভুক্ত নয়। (সূরা নিসা ২৪; তাফসীরে মাযহারী ২/২৬৫)

  2. আপনার উত্তর, প্রমান এবং যুক্তিসঙ্গত কথা গুলো ভালো লেগেছে।

  3. এখানে প্রাপ্ত বয়স্ক বলতে কত বোঝানো হয়েছে , বলবেন কি ?

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

15 − 4 =