‘শাদ্দাদের জান্নাত’ নামে কিছু ছিল কি?

জিজ্ঞাসা–৬৮৩: আস্সালামুআলাইকুম। হযরত, আশা করি আল্লাহর রহমতে ভালো আছেন। আমার একজন শিক্ষক যিনি বৌদ্ধ ধর্মের তিনি বলেন যে জান্নাত আটটি আর জাহান্নাম সাতটি কেন? এর কারণ হিসাবে তিনি বলেন যে বাদশা সাদ্দাদ এর তৈরী জান্নাতটিকে আল্লাহ আট নাম্বার জান্নাত হিসাবে রেখেছেন। আমি তার প্রতিবাদ করে বললাম এটা অসম্ভব। কেন জান্নাতের জন্য মহান আল্লাহ কোন মানুষের তৈরী জান্নাত রাখার প্রয়োজন নাই। কারণ তিনিই সর্বময় ক্ষমতা ও জ্ঞানের অধিকারী। তিনি আমার কাছে প্রমাণ বা দলিল চাইলেন যে তিনি ভুল কিভাবে এবং আমি সঠিক কিভাবে। আমি একজন সাধারন মুসলমান। মেহেরবানী করে উত্তর জানালে আমার ক্লাশের বাকি ভাইগুলোর ভুল ও বিশেষত স্যারের ভুলটা সমাধান হতো। আল্লাহ হাফেজ।–মুহাম্মদ মেহেদী হাসান।

জবাব: وعليكم السلام ورحمة الله وبركاته

শাদ্দাদের জান্নাত বা বেহেশত সম্পর্কিত যা কিছু কাহিনী হিসেবে বলা হয়,  এসবই বানোয়াট, ভিত্তিহীন কথা। কিছু ইহূদীদের বর্ণনা ও কিছু জালিয়াতগণের কাল্পনিক কল্পকাহিনী। এ বিষয়ক কোনো কিছুই রাসূলুল্লাহ থেকে কোনো সহীহ বা যয়ীফ সনদে বর্ণিত হয় নি। মূলত কিছু মুফাস্সির সনদবিহীনভাবে এ সকল বানোয়াট কাহিনী উদ্ধৃত করেছেন।

এ বিষয়ে প্রখ্যাত মুফাস্সির ইবনু কাসীর রহ. বলেন,

-وَإِنَّمَا نَبَّهْتُ عَلَى ذَلِكَ لِئَلَّا يُغْتَرَّ بِكَثِيرٍ مِمَّا ذَكَرَهُ جَمَاعَةٌ مِنَ الْمُفَسِّرِينَعِنْدَ هَذِهِ الْآيَةِ، مِنْ ذِكْرِ مَدِينَةٍ يُقَالُ لَهَا: (إِرَمَ ذَاتِ الْعِمَادِ)… فَإِنَّ هَذَا كُلَّهُ مِنْ خُرَافَاتِ الْإِسْرَائِيلِيِّينَ، مِنْ وَضْعِ بَعْضِ زَنَادِقَتِهِمْ، لِيَخْتَبِرُوا بِذَلِكَ عُقُولَ الْجَهَلَةِ مِنَ النَّاسِ أَنْ تُصَدِّقَهُمْ فِي جَمِيعِ ذَلِكَ.

আমি এ বিষয়ে এজন্য সতর্ক করছি যে, অনেক মুফাস্সির এ আয়াতের (সূরা ফাজর ৭) ব্যাখ্যায় ইরাম শহর সম্পর্কে এ সকল কথা বলেছেন। এদের কথায় পাঠক ধোঁকাগ্রস্থ হবেন না। … এ সকল কথা সবই ইহূদীদের কুসংস্কার ও তাদের কোনো কোনো যিনদীকের বানোয়াট কল্প কাহিনী। এগুলো দিয়ে তারা মুর্খ সাধারণ জনগণের বুদ্ধি যাচাই করে, যারা যা শোনে তাই বিশ্বাস করে। (তাফসীরে ইবনু কাসীর ৮/৩৯৫)

বিখ্যাত ইতিহাসবিদ ইবন খালদূন রহ. বলেন,

وأبعد من ذلك وأعرق في الوهم ما يتناقله المفسّرون في تفسير سورة والفجر. في قوله تعالى (أَلَمْ تَرَ كَيْفَ فَعَلَ رَبُّكَ بِعَادٍ * إِرَمَ ذَاتِ الْعِمَادِ) فيجعلون لفظة إرم اسما لمدينة وصفت بأنّها ذات عماد أي أساطين

সূরা ফজরের আয়াত ‘আপনি কি লক্ষ্য করেননি, আপনার পালনকর্তা আদ বংশের ইরাম গোত্রের সাথে কি আচরণ করেছিলেন, যাদের দৈহিক গঠন স্তম্ভ ও খুঁটির ন্যায় দীর্ঘ ছিল’–এর তাফসিরে (কিছু) মুফাসসিরগণ যা বলে থাকেন, তা নিতান্ত অসম্ভব ও ভিত্তিহীন। তারা বলে থাকেন, ইরাম একটি শহরের নাম; যা বহু স্তম্ভবিশিষ্ট প্রাসাদময়…। (তারিখে ইবন খালদূন ১/১৮)

প্রিয় প্রশ্নকারী ভাই, উক্ত আলোচনার আলোকে আশা করি স্পষ্ট হয়েছে যে, শাদ্দাদের তৈরিকৃত জান্নাত বলতে কিছু ছিল না। এর কোনো অস্তিত্বই ছিল না। সুতরাং শাদ্দাদের তৈরী জান্নাতটিকে আল্লাহ আট নাম্বার জান্নাত হিসাবে রেখেছেন- একথাও সম্পূর্ণ ভিত্তিহীন বৈ কিছু নয়।

والله اعلم بالصواب
উত্তর দিয়েছেন
মাওলানা উমায়ের কোব্বাদী
আরো পড়ুন–

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

4 × 3 =