গরু ছাগল বর্গা দেয়া যাবে কি?

জিজ্ঞাসা–২১০: আসসালামু আলাইকুম । শায়েখ, গরু বা ছাগল কাউকে ব্যবসার (কিছু দিন পর বিক্রি করব) উদ্দেশে পালন করার জন্য দিলে, ইসলামে এর নিয়ম কি দয়া করে জানাবেন।–মাহবুব : pharmacist_mmi@yahoo.com

জবাব:وعليكم السلام ورحمة الله وبركاته

আমাদের দেশে গরু ছাগল বর্গা দেওয়ার সাধারণত দু’টি পদ্ধতি চালু আছে। প্রথম পদ্ধতিটি হল–একজনের গরু বা ছাগল অন্যকে দিয়ে দেয় এ শর্তে যে, এ গরুটি বা ছাগলটি যখন বড় হবে তখন তা বাজারে বিক্রি করে যে দাম পাওয়া যাবে এর অর্ধেক লালন পালনকারী এবং অর্ধেক পশুটির মালিক পাবে। দ্বিতীয় পদ্ধতি হল– এভাবে চুক্তি হয় যে, পশুটির প্রথম বাচ্চা পাবে লালন পালনকারী আর মূল পশু মালিকের রয়ে যাবে। এর বিনিময়ে মালিক কিছুই পাবে না।
মূলত এরকম চুক্তি থেকে বিরত থাকা উচিত। তবে হাকীমুল উম্মত আশরাফ আলী থানবী রহ. বলেছেন-এ পদ্ধতিটি হাম্বলী মাযহাবে জায়েয। তাই কোন এলাকায় যদি এটি ব্যাপক প্রচলন হয়, আর এ ছাড়া আর কোন পদ্ধতি সহজ না হয়, তাহলে উক্ত পদ্ধতিটি হাম্বলী মাযহাব অনুযায়ী আমাদের মাযহাবেও জায়েয হিসেবে করা যাবে। (ইমদাদুল ফাতওয়া-৩/৩৪২-৩৪৩)
১ম সূরতের উত্তম পদ্ধতি হলো, যে পশুটি বর্গা দিতে চাচ্ছে, একটি নামমাত্র দাম ধরে যার কাছে বর্গা দিতে চাচ্ছে তার কাছে বিক্রি করে দিবে। আর যে টাকাটি বিক্রি হিসেবে মালিক পেল তা এক বা দুই বছর নির্ধারিত করে লালন পালনের মুজুরী হিসেবে পশু গ্রহিতাকে প্রদান করবে। এখন উভয়ে উক্ত পশুটির অর্ধেক অর্ধেক মালিক। সে হিসেবে পশুটির বাচ্চা ও দুধ ইত্যাদি সমান সমান ভোগ করতে পারবে। শরয়ী কোন সমস্যা এতে নেই।
২য় সূরতের উত্তম পদ্ধতি হলো, যার কাছে বর্গা দিতে চাচ্ছে তার সাথে এভাবে চুক্তি করবে যে, তুমি এক বছর আমার পশুটি লালন পালন কর, আমি তোমাকে কথার কথা একশত টাকা দিব। তারপর এক বছর পর যদি মালিক বাছুর নিতে চায়, তাহলে একশত টাকা পরিশোধ করে বাছুর নিয়ে নিবে। আর যদি লালনপালনকারী বাছুর নিতে চায়, তাহলে একশত টাকা নেবার বদলে বাছুরটি নিয়ে নিবে উভয়ের সন্তুষ্টিতে। এভাবে চলতে থাকলে এতে কোন শরয়ী বিধিনিষেধ নেই। (ইমদাদুল ফতওয়া ৩/৩৪২, ৩৪৩)
والله اعلم بالصواب
উত্তর দিয়েছেন
মাওলানা উমায়ের কোব্বাদী

 আরো পড়ুন: কুকুর পালা যাবে কি?

আরো পড়ুন: পাখি পালন কি জায়েয?

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

fourteen − five =