বাবা-মায়ের কথায় স্ত্রীকে তালাক দেয়া যাবে কিনা?

জিজ্ঞাসা১৪৬:আচ্ছালামু আলাইকুম। আমার প্রশ্ন, বাবা-মায়ের আদেশ নিয়ে।আমার বাবা-মা আমায় যদি আদেশ করেন, আমার স্ত্রীকে বাদ দেয়ার জন্য। কিন্তু আমার কাছে আমার স্ত্রী সব কিছুতেই ভাল। এ অবস্থায় আমি কি করতে পারি? মোঃ মুঞ্জুর আলি: mdmonjurhochain@yahoo.com

জবাব: ওয়ালাইকুমুস্সালাম।

বাবা-মায়ের আদেশ পালন করা ওয়াজিব। সুতরাং বাবা-মায়ের সঙ্গে কোনো অবস্থাতেই অসদাচারণ করা যাবে না। মনে রাখবেন, পিতামাতার সেবা ও সদ্ব্যবহারের জন্য তাঁদের মুসলমানও হওয়া জরুরী নয়। মহান আল্লাহ বলেন-

وَإِن جَاهَدَاكَ عَلى أَن تُشْرِكَ بِي مَا لَيْسَ لَكَ بِهِ عِلْمٌ فَلَا تُطِعْهُمَا وَصَاحِبْهُمَا فِي الدُّنْيَا مَعْرُوفًا

‘‘পিতা-মাতা যদি তোমাকে আমার সাথে এমন বিষয়কে শরীক স্থির করতে পীড়াপীড়ি করে, যার জ্ঞান তোমার নেই; তবে তুমি তাদের কথা মানবে না এবং দুনিয়াতে তাদের সাথে সদ্ভাবে সহঅবস্থান করবে।” (সূরা লুকমান : আয়াত ১৫)

কিন্তু তারা যদি অন্যায় আদেশ করে, তাহলে তা পালন করা হারাম। কেননা, ইসলামের শিক্ষা হল, لا طاعة لمخلوق في معصية الخالق অর্থাৎ আল্লাহর প্রতি অবাধ্যতা যেখানে আসবে, সেখানে সৃষ্টির আনুগত্য করা যাবে না। সৃষ্টির আনুগত্যের সীমারেখা বর্ণনা করতে গিয়ে রাসূলসাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম বলেন, فَإِنْ أُمِرَ بِمَعْصِيَةٍ، فَلَا سَمْعَ وَلَا طَاعَةَ অর্থাৎ অসৎকাজে আনুগত্য নয় ;আনুগত্য কেবলমাত্র সৎকাজের ক্ষেত্রেই হতে হবে’’। (সহীহ বুখারী, হাদীস নং ৭১৪৫)

সুতরাং বাবা-মা বউকে তালাক দিতে বললে কারণ জানতে হবে। কারণ যদি সঠিক ও যুক্তিসঙ্গত হয় এবং সে কারণে তালাক ছাড়া আর কোনো পথ বাকি না থাকে, পাশাপাশি যদি তালাক প্রদান করার দ্বারা আপনার জিনায় জড়িয়ে পড়ার সম্ভাবনা না থাকে, তাহলে পিতা মাতার সন্তুষ্টির জন্য স্ত্রীকে তালাক দিতে হবে।

عَبْدِ اللَّهِ بْنِ عُمَرَ عَنْ أَبِيهِ، قَالَ: كَانَتْ لِي امْرَأَةٌ كُنْتُ أُحِبُّهَا، وَكَانَ أَبِي يَكْرَهُهَا، فَقَالَ لِي: طَلِّقْهَا، فَأَبَيْتُ، فَأَتَى رَسُولَ اللَّهِ صَلَّى اللهُ عَلَيْهِ وَسَلَّمَ فَذَكَرَ ذَلِكَ لَهُ، فَقَالَ: «طَلِّقْهَا» فَطَلَّقْتُهَا

হযরত আব্দুল্লাহ বিন উমর রাযি. থেকে বর্ণিত। তিনি বলেন, আমার একজন স্ত্রী ছিল। যাকে আমি ভালবাসতাম। কিন্তু আমার পিতা [হযরত উমর বিন খাত্তাব রাযি. যৌক্তিক কারণে] তাকে পসন্দ করতো না। তিনি আমাকে বললেন, তাকে তালাক দিতে। কিন্তু আমি তালাক প্রদান করতে অস্বীকৃতি জানালাম। তখন আমার পিতা রাসূল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম এর কাছে বিষয়টি উপস্থাপন করলে রাসূল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম বললেন, তাকে তালাক দিয়ে দিতে। ফলে আমি আমার স্ত্রীকে তালাক প্রদান করি। (মুসনাদে আবু দাউদ তায়ালিসী, হাদীস নং-১৯৩১, মুসনাদে আহমাদ, হাদীস নং-৪৭১২, সুনানে আবু দাউদ, হাদীস নং-৫১৩৮)

পক্ষান্তরে কারণ যদি সঠিক না হয়, কেবল বউয়ের প্রতি ঈর্ষাবশতঃ হয়, তাহলে তালাক দেওয়া আপনার জন্য জায়েয নয়।

সম্মানিত ভাই, আসলে পুরুষকে সংসারের এই মা-বউয়ের দ্বন্দ্বে পরীক্ষা দিতে হয় । এক্ষেত্রে শরীয়তই হচ্ছে সঠিক ফয়সালাদাতা। সুতরাং আপনাকে সতর্ক থাকতে হবে যে, কোন আবেগ বা প্রেম, কোন ঈর্ষা বা হিংসা অথবা কোন পার্থিব লোভ লালসা যেন আপনাকে কারো প্রতি অন্যায়াচরণে বাধ্য না করে। এজন্য আপনার প্রতি আমার পরামর্শ হল, ধৈর্য ধারণ করুন, কম বলুন,বেশি শুনুন। বেশি বেশি করে আল্লাহর কাছে দুআ করুন,যেন আপনার পিতামাতার মন-মানসিকতার পরিবর্তন হয়। আপনার স্ত্রীকে তাদের সাথে ভালো ব্যবহার করার উপদেশ দিন। আপনার বাবা-মাকে বোঝান যে, তারা যেন বউয়ের ভুলত্রুটি ক্ষমা করে দেন এবং তার সাথে স্নেহ-মমতার আচরণ করেন।

আল্লাহ আপনার সহায় হোন। আমীন।

والله اعلم بالصواب
উত্তর দিয়েছেন
মাওলানা উমায়ের কোব্বাদী

১ টি মন্তব্য

  1. স্ত্রী যদি বাবা মায়ের সাথে সদব্যবহার না করে তাহলে আমার কি করণীয়?

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

5 × three =