অজুর অঙ্গে রং লাগলে কি অজু হবে না?

জিজ্ঞাসা–৬৭৪: আসসালামুআলাইকুম। হুজুর শরীরে কি পরিমান রং লাগলে অজু হবে না?–Md. Hameem farooq

জবাব: وعليكم السلام ورحمة الله وبركاته

অজুর মূল অঙ্গ ৪টি- চেহারা, হাত, পা, মাথা। মাথা মাসেহ করা ফরজ। আর বাকী তিন অঙ্গ ধোয়া ফরজ। এ তিন অঙ্গের কোন একটি স্থান শুকনো থাকলে অজু হবে না। কেননা, অজুর সময় সমস্ত অঙ্গে পানি পৌঁছানো ফরজ বিধায় এমন কোনো বস্তু অজুর অঙ্গে থাকতে পারবে না, যেগুলো চামড়া পর্যন্ত পানি পৌঁছতে প্রতিবন্ধক। যেমন—মোম, আঠা ইত্যাদি। সুতরাং যদি রং এমন হয় যা ব্যবহারে আবরণ পড়ে যায়, যার কারণে অজুর অঙ্গে পানি পৌঁছায় না তাহলে তার অজু হবে না। রঙের প্রলেপ -এমনকি তা একেবারে সামান্য হলেও- দূর করে তবেই অজু করতে হবে।

হাদিস শরিফে এসেছে, রাসূলুল্লাহ দেখলেন জনৈক ব্যক্তি অজু করেছে কিন্তু পায়ে তার নখ বরাবর একটি স্থান রয়ে গিয়েছে। তিনি তাকে বললেন,

ارْجِعْ فَأَحْسِنْ وُضُوءَكَ

তুমি ফিরে গিয়ে সুন্দরভাবে অজু করে আস। (মুসলিম ৩৯১)

والله اعلم بالصواب
উত্তর দিয়েছেন
শায়েখ উমায়ের কোব্বাদী

ন্তব্য

  1. হুজুর একবারে পরিস্কার করার পর ও অনেক সময় তা হাল্কা করে থেকে যায়,,,কিন্তু সেটা আমি দেখি না,,,,পরের ওয়াক্তে যখন দেখি সেটা পরিস্কার করে নামাজ আদায় করি,,,,এখন আমার প্রশ্ন হচ্ছে, আমি যে আগের ওয়াক্ত নামাজ পড়েছি তা কি আমার আবার পুনরায় পড়তে হবে?

    • হালকা যে পরিমাণ থাকে তা যদি এমন হয় যে, প্রবল ধারনা হল, পানি পৌঁছেনি তাহলে নামাজ দোহরাতে হবে। আর যদি এতটাই হালকা থাকে যে, প্রবল ধারণা হল, পানি পৌঁছে গেছে তাহলে নামাজ পুনরায় পড়তে হবা না।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

thirteen + 7 =