অন্তরে কুফুরি-চিন্তা আসে…

জিজ্ঞাসা–৬৯৭: অন্তরে কুফুরি আসলে কী করব?–আব্দুল্লাহ্ আল মামুন।

জবাব: 

এক. প্রিয় ভাই, আপনাকে যদি বলা হয়, মনের মাঝে আসা চিন্তাগুলো আপনি কি বাস্তবেই বিশ্বাস করেন? আপনার মনে যে সকল কুফুরি-ওয়াসওয়াসার উদয় হয়, সেগুলোকে আপনি কি সত্য মনে করেন? উত্তরে আপনি অবশ্যই বলবেন, না, আমি এই চিন্তাগুলোর সঙ্গে মোটেও একমত নই এবং আমি এগুলো বিশ্বাস করি না। উপরন্তু আপনি অবশ্যই এই চিন্তাগুলোকে ঘৃণা করবেন এবং জবানের মাধ্যমে প্রতিবাদ করবেন। আর আপনি এ থেকে দূরে থাকবেন। সুতরাং বোঝা গেল, এগুলো শুধুমাত্র মনের কল্পনা এবং ওয়াসওয়াসা; যা শয়তানের ফাঁদ। তার অন্যতম চক্রান্ত হল, বান্দার অন্তরে সন্দেহ তৈরি করা, যাতে সে বান্দার ঈমান দুর্বল করে দিতে পারে । এজন্য রাসূলুল্লাহ আমাদেরকে এ থেকে সতর্ক করেছেন। যেমন, রাসূলুল্লাহ বলেন,

 يَأْتِي الشَّيْطَانُ أَحَدَكُمْ ، فَيَقُولَ : مَنْ خَلَقَ كَذَا وَكَذَا ؟ حَتَّى يَقُولَ لَهُ : مَنْ خَلَقَ رَبَّكَ ؟ فَإِذَا بَلَغَ ذَلِكَ ، فَلْيَسْتَعِذْ بِاللَّهِ وَلْيَنْتَهِ 

শয়তান তোমাদের কারো নিকট আসে এবং বলে, এটা কে সৃষ্টি করেছে, ওটা কে সৃষ্টি করেছে? পরিশেষে এ প্রশ্নও করে, তোমার রবকে কে সৃষ্টি করেছে? এ পর্যায়ে পৌঁছলে তোমরা আল্লাহর আশ্রয় প্রার্থনা কর এবং এ ধরণের ভাবনা থেকে বিরত হও। ( বুখারী ৩২৭ )

উক্ত হাদিসে রাসূলুল্লাহ আমাদেরকে দুটি দিকনির্দেশনা দিয়েছেন–

১. আল্লাহর আশ্রয় প্রার্থনা কর, তাঁর রজ্জু মজবুতভাবে আঁকড়ে ধর। তিনি অসীম দয়ালু। সুতরাং তিনি তোমাকে ক্ষমা করবেন ও মুক্তি দিবেন। মূলত এই নির্দেশ স্বয়ং আল্লাহরই। তিনি বলেন,

وَإِمَّا يَنزَغَنَّكَ مِنَ الشَّيْطَانِ نَزْغٌ فَاسْتَعِذْ بِاللَّهِ ۖ إِنَّهُ هُوَ السَّمِيعُ الْعَلِيمُ

যদি শয়তানের পক্ষ থেকে তুমি কিছু কুমন্ত্রণা অনুভব কর, তবে আল্লাহর শরণাপন্ন হও। নিশ্চয় তিনি সর্বশ্রোতা, সর্বজ্ঞ। (সূরা হা-মীম-সিজদাহ ৩৬)

২. কুমন্ত্রণাকে গুরুত্ব না দিয়ে কোনো উপকারী কাজে ব্যস্ত হয়ে যাও। কেননা একজন মুমিনের জীবনে এই সমস্যা প্রথম সমস্যা নয় এবং শেষ সমস্যাও নয়; বরং দুনিয়াতে একজন মুমিন অবশিষ্ট থাকলেও এ সমস্যা বর্তমান থাকবে। সাহাবীগণও এ সমস্যার সম্মুখীন হয়েছিলেন। সুতরাং বুদ্ধিমানের কাজ হল, সমস্যাটিকে স্বাভাবিক মনে করে একে গুরুত্ব না দেয়া। হাদিসে এসেছে, একবার সাহাবায়ে কেরমের একদল রাসূলুল্লাহ -এর কাছে এসে জিজ্ঞাসা করলেন, আমরা আমাদের অন্তরে কখনো কখনো এমন বিষয় অনুভব করি, যা মুখ দিয়ে উচ্চারণ করা আমাদের কাছে খুব কঠিন মনে হয়। রাসূলুল্লাহ বললেন, সত্যিই কি তোমরা এরকম পেয়ে থাক? তাঁরা বললেন হ্যাঁ, আমরা এরকম অনুভব করে থাকি। রাসূলুল্লাহ বললেন, ذَاكَ صَرِيحُ الْإِيمَانِ এটি তোমাদের ঈমানের স্পষ্ট প্রমাণ। (মুসলিম, কিতাবুল ঈমান, অনুচ্ছেদ: অন্তরের ওয়াসওয়াসা)

ইবন আব্বাস রাযি. থেকে বর্ণিত আরেক হাদিসে এসেছে, রাসূলুল্লাহ -এর কাছে একজন লোক এসে বললেন, আমার মনে কখনো এমন কথার উদয় হয়, যা উচ্চারণ করার চেয়ে আগুনে পুড়ে কয়লা হয়ে যাওয়া আমার কাছে বেশি ভালো মনে হয়। রাসূলুল্লাহ বললেন, الْحَمْدُ لِلَّهِ الَّذِي رَدَّ أَمْرَهُ إِلَى الْوَسْوَسَةِ সমস্ত প্রশংসা আল্লাহর জন্য যিনি এ বিষয়টিকে নিছক একটি মনের ওয়াসওয়াসা হিসাবে নির্ধারণ করেছেন। (আবু দাউদ, কিতাবুল আদব, অনুচ্ছেদ: ওয়াসওয়াসা প্রতিরোধ)

হাজী ইমদাদুল্লাহ মুহাজিরে মক্কী রহ. বলেন, চোর তো সেই ঘরেই ঢুকে যে ঘরে দামী সম্পদ থাকে। অনুরূপভাবে ইবলিস উক্ত ওয়াসওয়াসা ওই মানুষকেই দিয়ে থাকে, যার অন্তরে ঈমান নামক মহামূল্যবান সম্পদ থাকে।

শাইখুল ইসলাম ইবনু তাইমিয়া রহ. বলেন, মুমিনব্যক্তি এ ধরণের ওয়াওয়াসাকে অপছন্দ করা সত্ত্বেও তার মনে এর উদয় হওয়া এবং তা প্রতিহত করতে প্রাণপন চেষ্টা করা তার ঈমানদার হওয়ার প্রমাণ বহন করে। যেমন কোনো মুজাহিদের সামনে শত্রু এসে উপস্থিত হলো। মুজাহিদ শত্রুকে প্রতিহত করল এবং পরাজিত করল। এটি একটি বিরাট জিহাদ। অনুরূপভাবে শয়তানের ওয়াসওয়াসাকে প্রতিহত করাও একটি বড় জিহাদ।

দুই. শয়তানের উক্ত ওয়াসওয়াসাকে প্রতিহত করার লক্ষে নিমোক্ত হাতিয়ারগুলো ব্যবহার করতে পারেন–

১. আনাস রাযি. বলেন, রাসুল (উম্মতকে শিক্ষা দেওয়ার জন্য) সব সময় এই দোয়া করতেন, يَا مُقَلِّبَ الْقُلُوْبِ ثَبِّتْ قَلْبِىْ عَلىٰ دِيْنِكَ হে অন্তর পরিবর্তনকারী! আমার অন্তর আপনার দীনের উপর দৃঢ় করে দিন।

আনাস রাযি. বলেন, আমি বললাম, হে আল্লাহর রাসুল! আমরা আপনার উপর এবং আপনার আনিত শিক্ষার উপর ঈমান এনেছি। এখন আপনার মনে কি আমাদের সম্পর্কে কোনো সন্দেহ আছে? ( যে বেশি বেশি এই দোয়া করেন!) রাসুল উত্তর দিলেন হ্যাঁ! সব অন্তর আল্লাহর দুই আঙ্গুলের মধ্যে পড়ে আছে। আল্লাহ যেভাবে চান, এগুলোকে পরিবর্তন করেন। (তিরমিযি ২১৪০ তাকদির অধ্যায়)

সুতরাং এই হাদিসের শিক্ষা অনুযায়ী আপনিও উক্ত দোয়া অধিকহারে করুন।

২. এই রোগ থেকে আল্লাহর কাছে আরোগ্য লাভের জন্য আল্লাহর কাছে বেশি বেশি দোয়া করুন। বিশেষত যে সকল স্থানে শয়তানের কুমন্ত্রণা থেকে মুক্তি লাভের জন্য আল্লাহর আশ্রয় প্রার্থনার দোয়া শিক্ষা দেয়া হয়েছে, সেখানে ওই দোয়ার প্রতি বিশেষ গুরুত্ব দিন। যেমন,

—- টয়লেটে ঢোকার সময় পড়ুন–اللَّهُمَّ إِنِّي أَعُوذُ بِكَ مِنْ الْخُبْثِ وَالْخَبَائِثِ ( হে আল্লাহ! আমি আপনার নিকট অপবিত্র জিনিস ও শয়তান থেকে তোমার আশ্রয় গ্রহণ করছি।)

—- গোস্বা উঠলে পড়ুন– أَعُوذُ بِاللَّهِ مِنَ الشَّيْطَانِ الرَّجِيم (আমি আল্লাহর নিকট বিতাড়িত থেকে তোমার আশ্রয় গ্রহণ করছি।)

—- স্ত্রীসহবাসের সময় পড়ুন–بِسْمِ اللّهِ اللّهُمَّ جَنِّبْنَا الشَّيْطَانَ وَ جَنِّبِ الشَّيْطَانَ مَا رَزَقْتَنَا (আল্লাহর নামে শুরু করছি, হে আল্লাহ! আমাদেরকে তুমি শয়তান থেকে দূরে রাখ এবং আমাদেরকে তুমি যা দান করবে তা থেকে শয়তানকে দূরে রাখ।)

—- ঘরে প্রবেশ করার পর এবং ফজর ও মাগরিবের নামাজের পর পড়ুন– أَعُوذُ بِكلِمَاتِ الله التّامّاتِ مِن شَرّ مَا خَلَقَ (আমি আল্লাহ তাআলার পূর্ণাঙ্গ কালামের কাছে তাঁর সৃষ্টির সকল অনিষ্টতা থেকে আশ্রয় চাই।)

—- সকাল ও সন্ধ্যায় পড়ুন-أَعُوذُ بِكَلِمَاتِ اللَّهِ التَّامَّةِ، مِنْ غَضَبِهِ وَشَرِّ عِبَادِهِ، وَمِنْ هَمَزَاتِ الشَّيَاطِينِ وَأَنْ يَحْضُرُونِ (আমি আল্লাহর পরিপূর্ণ কালেমার আশ্রয় প্রার্থনা করি তার অসম্ভষ্টি ও শাস্তি থেকে এবং তার বান্দার অনিষ্ট থেকে এবং শয়তানের কুমন্ত্রণা থেকে ও শয়তানের সংস্পর্শ থেকে।)

—- ফজর ও মাগরিবের পর এবং ঘুমানোর আগে সূরা ফালাক ও নাস পড়ুন। হাদিসে এসেছে, উকবা ইবনে আমের রাযি. হতে বর্ণিত, রাসূলুল্লাহ বলেছেন,

أَلَمْ تَرَ آيَاتٍ أُنْزِلَتِ اللَّيْلَةَ ، لَمْ يُرَ مِثْلُهُنَّ قَطُّ ؟ قُلْ أَعُوذُ بِرَبِّ الْفَلَقِ ، وَقُلْ أَعُوذُ بِرَبِّ النَّاسِ

তোমার কি জানা নেই আজ রাতে আমার ওপর যে আয়াতগুলো নাজিল হয়েছে এগুলোর মতো কোনো আয়াত দেখা যায় নি। আর তা হলো কুল আয়ুজু বি রাব্বিল ফালাক ও কুল আয়ুজু বি রাব্বিন নাস। (মুসলিম ৮১৪)

৩. বেশী করে আল্লাহর জিকির করুন। কেননা, জিকির শয়তান থেকে আত্মরক্ষার শক্তিশালী দুর্গ। আল্লাহ তাআলা বলেন,

اسْتَحْوَذَ عَلَيْهِمُ الشَّيْطَانُ فَأَنسَاهُمْ ذِكْرَ اللَّهِ أُوْلَئِكَ حِزْبُ الشَّيْطَانِ أَلَا إِنَّ حِزْبَ الشَّيْطَانِ هُمُ الْخَاسِرُونَ
শয়তান তাদেরকে বশীভূত করে নিয়েছে, অতঃপর আল্লাহর জিকির ভুলিয়ে দিয়েছে। তারা শয়তানের দল। সাবধান, শয়তানের দলই ক্ষতিগ্রস্ত। (সূরা মুজাদালাহ ১৯)

৪. ঈমান ও ইসলামের পরিবেশে সময় ব্যয় করুন। কেননা, রাসূলুল্লাহ বলেছেন,

فَمَنْ أَرَادَ مِنْكُمْ بَحْبَحَةَ الْجَنَّةِ فَلْيَلْزَمُ الْجَمَاعَةَ، فَإِنَّ الشَّيْطَانَ مَعَ الْوَاحِدِ، وَهُوَ مِنَ الِاثْنَيْنِ أَبْعَدُ

তোমাদের মধ্যে যে ব্যক্তি জান্নাতের মাঝখানে থাকতে ইচ্ছুক, সে যেন অবশ্যই জামাতবদ্ধ জীবন যাপন করে। কেননা শয়তান একাকী মানুষের সঙ্গী এবং দু’জন থেকে সে অপেক্ষাকৃত দূরে থাকে। (তিরমিযি ২২৫৪)

প্রিয় ভাই, উক্ত কয়েকটি হাতিয়ার আপনাকে দিলাম। আশা করি, কাজে লাগাবেন এবং যাবতীয় কুচিন্তা ও কুমন্ত্রণা থেকে নিজেকে বাঁচিয়ে রাখবেন। নিশ্চয় আল্লাহ তাওফিকদাতা।

والله اعلم بالصواب
উত্তর দিয়েছেন
মাওলানা উমায়ের কোব্বাদী
আরো পড়ুন–