আহলে হাদীস মসজিদের আযান শুনে ইফতার করা যাবে কিনা?

জিজ্ঞাসা–১৪০৪: আসসালামু আলাইকুম। আশা করছি আল্লাহর রহমতে ভাল আছেন। আমরা জানি, আহলে হাদীসে মসজিদগুলোয় ২-৩ মিনিট আগে মাগরিবের আযান দেয়। আমার প্রশ্ন হল, আহলে হাদীস মসজিদের আযান শুনে ইফতার করা যাবে কিনা? জাজাকাল্লাহ খাইরান।–কামরুল হাসান।

জবাব: وعليكم السلام ورحمة الله وبركاته

মূলত ইফতার শুরু হয় সূর্যাস্তের মাধ্যমে। কেননা, রাসূলুল্লাহ বলেছেন,

إِذَا أَقْبَلَ اللَّيْلُ مِنْ هَا هُنَا ، وَأَدْبَرَ النَّهَارُ مِنْ هَا هُنَا ، وَغَرَبَتْ الشَّمْسُ فَقَدْ أَفْطَرَ الصَّائِمُ

যখন রাত এ (পূর্ব) দিক থেকে আগমন করবে এবং দিন এ (পশ্চিম) দিক থেকে প্রস্থান করবে এবং সূর্য ডুবে যাবে, তখন অবশ্যই রোজাদার ইফতার করবে। (বুখারী ১৯৫৪ মুসলিম ১১০০)

প্রিয় প্রশ্নকারী ভাই, আমাদের দেশে সাহরী ও ইফতারের সময়সূচির ক্যালেন্ডারে সতর্কতামূলক দুই/তিন মিনিট আগ-পিছ করে সময় লেখা থাকে। যেমন, সূর্যাস্তের প্রকৃত সময় যদি হয় ৬ টা ২০ মিনিটে, তাহলে ক্যালেন্ডারে সতর্কতামূলক লেখা থাকে ৬ টা ২৩ মিনিট। সুতরাং আপনি যদি মনে করেন সতর্কতামূলক সময়ের আগেই আহলে হাদীস মসজিদের আযান শুনে ইফতার করবেন তাহলে তা নিজ দায়িত্বে করতে পারেন।

তবে মনে করুন, আহলে হাদীস মসজিদের আযান শুনে আপনি ইফতার করলেন ৬ টা ২০ মিনিটে। কিন্তু প্রকৃত পক্ষে সূর্যাস্ত হতে পারে ৬ টা ২০ মিনিট ১০ সেকেন্ড ৩৮০ মিলিসেকেন্ডে। অ্যাপে বা আবহাওয়া অফিস থেকে ২০ মিনিটের পরের এই ১০ সেকেন্ড ৩৮০ মিলিসেকেন্ড ইগনোর করা হয়। কিন্তু একজন রোজাদার এই ১০ সেকেন্ড কিন্তু ইগনোর করতে পারে না। এই ১০ সেকেন্ড বাদ দিয়ে সূর্যাস্তের সঙ্গে সঙ্গে ইফতার করার জন্য যদি ৬ টা ২০ মিনিটেই ইফতার করেন তাহলে কিন্তু আপনার রোজা নষ্ট হয়ে যাবে। তাছাড়া সূর্যাস্তের মত মহাজাগতিক একটা বিষয় সুইচ টিপে বাতি নিভানোর মত এক মুহূর্তের মধ্যে ঘটে যায় না। ব্যাপারটা এমন নয় যে, সময় হল আর টুপ করে সূর্যটা ডুবে গেল। বরং ঘটনাটা সম্পন্ন হতে কিছুটা সময় লাগে। আস্তে আস্তে কিছুটা সময় নিয়ে সূর্য অস্ত যায়। এ কারণেই আলেমগণ বলেন, জিপিএস এর মাধ্যমে সূর্যাস্তের সময়ের সঙ্গে অন্তত ২/১ মিনিট যোগ করে ইফতার করুন। এতে আপনার রোজা নষ্ট হওয়ার আশংকা আর থাকবে না।

والله اعلم بالصواب