ইসালে সাওয়াবের উদ্দেশ্যে দাওয়াত করে খাওয়ানো

জিজ্ঞাসা-২১: যারা মৃতব্যক্তিকে মাটি দেওয়ার কাজে শরীক হয় শুধুমাত্র তাদেরকে ইসালে সাওয়াবের উদ্দেশ্যে দাওয়াত করে খাওয়ানো জায়েজ আছে কি? জানালে চির কৃতজ্ঞ হবো।–Zahidul Islam

জবাব : আমাদের সমাজে প্রচলিত একটি রুসম হল, মৃতব্যক্তির দাফন-কাফনে যারা শরীক হয় তাদের উদ্দেশ্যে যিয়াফত তথা আড়ম্বরপূর্ণ দাওয়াত অনুষ্ঠানকে ঈসালে সওয়াবের মাধ্যম হিসেবে মনে করা হয়। সমাজে এটাকে ‘’মাটিয়াল’’ও বলা হয়। অথচ শরীয়তে যিয়াফতের আয়োজনের কথা তো আছে আনন্দের মুহূর্তে, মুসিবতের মুহূর্তে নয়। হাদীস শরীফে এসেছে- হযরত জারীর ইবনে আবদুল্লাহ আলবাজালী রাযি. থেকে বর্ণিত, তিনি বলেন, আমরা (সাহাবাগণ) দাফনের পর মৃতকে কেন্দ্র করে সমবেত হওয়া ও খাবারের আয়োজন করাকে জাহিলিয়াতযুগের ‘নিয়াহা’ বলে গণ্য করতাম। (মুসনাদে আহমদ ২/২০৪; ইবনে মাজাহ ১৬১২)

তবে কোনো দিন-তারিখ নির্ধারিত না করে গরীব-মিসকীনদেরকে সাদকার নিয়তে খানা খাওয়ানো ঈসালে সাওয়াবের একটি বৈধ পন্থা । যেমন হাদীস শরীফে এসেছে-

أَنَّ سَعْدَ بْنَ عُبَادَةَ رَضِي اللَّه عَنْه تُوُفِّيَتْ أُمُّهُ وَهُوَ غَائِبٌ عَنْهَا فَقَالَ يَا رَسُولَ اللَّهِ إِنَّ أُمِّي تُوُفِّيَتْ وَأَنَا غَائِبٌ عَنْهَا أَيَنْفَعُهَا شَيْءٌ إِنْ تَصَدَّقْتُ بِهِ عَنْهَا قَالَ نَعَمْ قَالَ فَإِنِّي أُشْهِدُكَ أَنَّ حَائِطِيَ الْمِخْرَافَ صَدَقَةٌ عَلَيْهَا

সা‘দ ইবন ‘উবাদাহ রা. এর মা তার অনুপস্থিতিতে মারা যান। পরে তিনি বললেন, ইয়া রাসূলুল্লাহ , আমার অনুপস্থিতিতে আম্মা মারা গেছেন। আমি যদি তাঁর জন্য কিছু সাদাকাহ করি তবে কি তা তাঁর উপকারে আসবে ? তিনি বললেন, হ্যাঁ। তিনি বললেন, আপনি সাক্ষী, আমার মিখরাফ নামক বাগানটি তাঁর জন্য সাদাকাহ করলাম। (বুখারী, কিতাবুর ওয়াসায়া ২৫৫১)

মুফতি  আব্দুল হক হাক্কানী র. বলেন, ‘খানা তৈরি করে খাওয়ানো ৫টি শর্তে জায়েয।

  •  প্রচলিত প্রথা ও রুসুম বশবর্তী হয়ে না করা।
  • লোক দেখানোর জন্য না করা।
  • মৃতের মিরাছ বন্টনের পরে করা। মিরাছ বন্টনের পূর্বে হলে সকলেই বালেগ হতে হবে এবং সকলের অনুমতি থাকতে হবে।
  • হালাল মাল হতে হবে। হারাম মাল হলে চলবে না।
  • প্রচলিত নিয়মে দিন, তারিখ, মাস ইত্যাদি নির্দিষ্ট করতে পারবে না। ( ফাতাওয়ায়ে হাক্কানীয়া : ২/৫০)
والله اعلم بالصواب
উত্তর দিয়েছেন
মাওলানা উমায়ের কোব্বাদী