কসর নামাজের কাযা

জিজ্ঞাসা–১৩৭২: যদি ১ মাস পর মনে পড়ে কসরের নামায কাযা হয়েছিল তাহলে কি তা পড়া যাবে? পড়া গেলে নিয়ম কী?–সাইফুজ্জামান।

জবাব: নামাজের ক্ষতিপূরণ নামাজই, তাই আপনার জন্য উক্ত নামাজ কাজা করা ওয়াজিব। কেননা, আনাস ইবনু মালিক রাযি. হতে বর্ণিত, রাসূল ﷺ বলেছেন,

مَنْ نَسِيَ صَلاَةً فَلْيُصَلِّ إِذَا ذَكَرَهَا، لاَ كَفَّارَةَ لَهَا إِلاَّ ذَلِكَ فإن الله يقول {‏وَأَقِمِ الصَّلاَةَ لِذِكْرِي‏}‏

যদি কেউ কোনো নামাজের কথা ভুলে যায়, তাহলে যখনই স্মরণ হবে, তখন তাকে তা আদায় করতে হবে। এ ব্যতীত সে নামাজে র অন্য কোনো কাফ্ফারা নেই। কেননা, আল্লাহ্ তা‘আলা ইরশাদ করেছেন, ‏وَأَقِمِ الصَّلاَةَ لِذِكْرِي আমাকে স্মরণের উদ্দেশে নামাজ কায়েম কর। (মুসলিম ৬৮৪)

আর নিয়ম হল, কসর নামাজ যদি কাজা হয়ে যায়, তাহলে সেই কসর নামাজ কাজা করতে হবে। অর্থাৎ সফর অবস্থায় কোনো নামাজ কাজা হলে পরবর্তীতে বাসা-বাড়িতে এসে বা মুকিম হয়ে (সফরে না থাকা) সেই নামাজ আদায় করতে হলে— কসর নামাজ-ই পড়তে হবে।

অনুরূপভাবে সফরে গিয়ে মুকিম অবস্থার কোনো নামাজের কাজা আদায় করতে গেলে— পুরো নামাজ-ই কাজা করতে হবে। (ফাতাওয়া দারুল উলুম, খণ্ড : ০৪, পৃষ্ঠা : ৪৫২; ফাতাওয়া শামি, খণ্ড : ০২, পৃষ্ঠা : ১৩৫)

والله اعلم بالصواب