কেউ রূপার ভিত্তিতে নয়; বরং সোনার ভিত্তিতে যাকাত আদায় করলে গুনাহ হবে কি?

জিজ্ঞাসা–১০৩৩: যাকাতের নিসাবের ক্ষেত্রে যতদূর জানি বলা হয়েছে যে সাড়ে বায়ান্ন ভরি রুপা অথবা সাড়ে সাত ভরি সোনা। তবে ওলামায়ে কেরাম সাধারণত বলে থাকেন যে, গরিবের উপকার হয় এইজন্য রুপাকে ভিত্তি ধরে হিসাব করতে হবে। প্রশ্ন হল এটি বাধ্যতামূলক কিনা? যদি কেউ সোনার ভিত্তিতে যাকাত আদায় করে তাহলে সে কি পাপী হবে? দলিল এর আলোকে জানাবেন। জাযাকাল্লাহু খায়রান।–এহসানুল হক।

জবাব: প্রিয় প্রশ্নকারী ভাই, ওলামায়ে কেরাম রূপার নিসাবের মূল্যকে মানদণ্ড হিসাবে বলে থাকেন কেবল গরিবের উপকারের দিকে তাকিয়ে নয়। বরং এছাড়াও আরো কারণ রয়েছে। যেমন, যেহেতু যাকাত ইসলামের অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ রোকন এবং যাকাত পরিশোধ না করার ভয়াবহ পরিণাম ইসলামে বিবৃত হয়েছে সেহেতু রূপার নিসাবের মূল্যকে মানদণ্ড হিসাবে ধরা হলে এতেই রয়েছে অধিক সতর্কতা ও দায়-মুক্তি। কেননা হতে পারে আল্লাহর নিকট রূপার মূল্যের ভিত্তিতে যাকাত ওয়াজিব হয়েছে।

তবে যাঁরা সোনাকে নিসাব হিসাবে ধরেন তাঁদের মাঝে  সতর্কতা, দায়-মুক্তির পরিপূর্ণ নিশ্চয়তা ও গরীবদের উপকারের ব্যাপারগুলো কম থাকলেও আমরা তাঁদেরকেও তিরস্কার করি না।  কেননা মাসআলাটি আলিমদের মাঝে মতবিরোধপূর্ণ।

والله اعلم بالصواب
উত্তর দিয়েছেন
শায়েখ উমায়ের কোব্বাদী

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

3 × 3 =