কোরআনকে ‘কোরআন শরীফ’ বলা যাবে কি?

জিজ্ঞাসা–৩৫২: আমার এক কলিগ বলছেন, কোরআন শরীফ বলা নাকি বিদাত। এটা কতটুকু সত্য?-– মুহাম্মদ মেহেদী হাসান।

জবাব: ‘শরীফ’ অর্থ ভদ্র, উচ্চ-মর্যাদাসম্পন্ন, সম্মানিত। (হাসানুল লুগাত পৃ.৫৬১, ফিরুযুল লুগাত পৃ.৬৩৬, রাবেয়া উর্দূ লুগাত পৃ.৭১১) সুতরাং ‘কোরআন শরীফ’ অর্থ উচ্চ-মর্যাদাসম্পন্ন, সম্মানিত কোরআন। আর কোরআন উচ্চ মর্যাদাসম্পন্ন –একথা কোরআনেই ইরশাদ হয়েছে। যেমন, وَإِنَّهُ فِي أُمِّ الْكِتَابِ لَدَيْنَا لَعَلِيٌّ حَكِيمٌ ‘প্রকৃতপক্ষে এটা (কোরআন) আমার কাছে লওহে মাহফুজে উচ্চ মর্যাদাসম্পন্ন হিকমতপূর্ণ কিতাব।’ (সুরা যুখরুফ-৩)

بَلْ هُوَ قُرْآنٌ مَّجِيدٌ. فِي لَوْحٍ مَّحْفُوظٍ ‘বরং এটা অতি সম্মানিত কোরআন, যা লওহে মাহফুজে লিপিবদ্ধ।’ (সুরা বুরুজ-২১, ২২)

অতএব, আপনার কলিগ যে বলেছেন, কোরআনকে ‘কোরআন শরীফ’ বলা বিদআ’ত–তার একথা অসত্য। তিনি ‘শরীফ’ শব্দের আভিধানিক অর্থ না জানার কারণেই এমনটি বলেছেন।

والله اعلم بالصواب

ন্তব্য

  1. এখানেই প্রমাণিত আল- কুরআনের নামকরণ করা হয়েছে কুরআনুম মাজিদ ৷ (সুরা বুরূজ)৷ শরীফ শব্দ আসল কোথা থেকে ৷সাহাবী গন (রাঃ) এই নামকরণ করেননি ৷

  2. আমি মনে করি শরীফ শরীফ শব্দটার চাইতে মাজিদ শব্দটা গুরুত্বপূর্ণ তাই আল্লাহ এটাই ব্যবহার করেছেন। সর্বোপরি একজন সাধারণ মানুষ হিসেবে আমি মনে করি মাজিদ শব্দটা ব্যবহার করাই শ্রেয় হবে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

one × four =