তালাকের কল্পনা করলে তালাক হয় কিনা?

জিজ্ঞাসা–১১১২: আসসালামু আলাইকুম। ধরুন, কোন ব্যক্তি মনে মনে এভাবে বলল যে, ‘আমি যদি অমুক কাজটা করি তাহলে আমার স্ত্রী…হয়ে যাবে (বৈবাহিক সম্পর্ক হারাম হয়ে যাবে।) খেয়াল করুন, উপরের কথাটা শুধু মনে মনেই ভাবা হয়েছে…কিন্তু কথাটা বলার সময় মাথা নাড়িয়ে না না করতে থাকে, তার মাথা নাড়ানোর উদ্দেশ্য হচ্ছে, ওই কাজটা করবে না। তাহলে উক্ত ব্যাক্তি ওই কাজটা করলে কি বৈবাহিক সম্পর্কে কোন সমস্যা হবে?–নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক।

জবাব: وعليكم السلام ورحمة الله وبركاته

প্রিয় প্রশ্নকারী দীনি ভাই, তালাক ইসলামে অত্যন্ত স্পর্শকাতর বিষয়। একান্ত শরঈ-প্রয়োজন ছাড়া এর প্রয়োগ গুনাহর কাজ এবং অনিবার্য ক্ষতির কারণ। ইসলামি-শরিয়তে তালাকের পথ খোলা রাখা হয়েছে শুধু অতীব প্রয়োজনের (যা শরীয়তে ওজর বলে গণ্য) ক্ষেত্রে ব্যবহারের জন্য। সুতরাং এর যথেচ্ছা ব্যবহার যেমনভাবে কাম্য নয়, তেমনিভাবে তালাক হয়ে যায় এমন অহেতুক কল্পনা বা চিন্তা করাও উচিত নয়। তবে মুখে উচ্চারণ না করে শুধু চিন্তা বা কল্পনা করলে তালাক পতিত হয় না। (উমদাতুল কারী শরহুল বুখারি ২০/২৫৬)

আলমাউসুয়া’তুল ফিকহিয়া (২৩/২৯)– এসেছে,

فإذا نوى التّلفّظ بالطّلاق ثمّ لم يتلفّظ به : لم يقع بالاتّفاق

ودليل الجمهور قول النّبيّ ﷺ : ( إنّ اللّه تجاوز لأمّتي عمّا حدّثت به أنفسها ، ما لم تعمل أو تكلّم به )

‘কোন ব্যক্তি তালাকের নিয়ত করেছে, অতপর মুখে উচ্চারণ করে নি, তাহলে সকলের মতে তালাক হবে না। কেননা রাসুলুল্লাহ বলেছেন, আল্লাহ তাআলা আমার উম্মতের মনের কথাগুলো ক্ষমা করেন, যতক্ষণ পর্যন্ত তা বাস্তবে করা হয় না কিংবা মুখে উচ্চারণ করা হয় না।’

সুতরাং প্রশ্নেল্লেখিত অবস্থায় আপনার স্ত্রীর উপর তালাক পতিত হয় নি।

والله اعلم بالصواب
উত্তর দিয়েছেন
শায়েখ উমায়ের কোব্বাদী

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

six + 5 =