নামাযের পর সম্মিলিত মুনাজাত কি বেদআত?

জিজ্ঞাসা–২০৮: আসসালামু আলাইকুম। হুযুর, আমি জানতে চাই, নামাজের পর সকল মুসল্লি একত্রে মুনাজাত করা যাবে কিনা? কিছু আলেম বলে যাবে আর কিছু আলেম বলে যাবে না। আশা করি, দলিলসহ জানাবেন।–মোঃ মুঞ্জুর আলি: monjur [email protected]

জবাব:وعليكم السلام ورحمة الله وبركاته

প্রিয় প্রশ্নকারী ভাই, মূলত আমাদের সমাজে জামাতে নামাজের পর হাত তুলে মুনাজাত করার বিষয়ে দু’ধরণের প্রান্তিকতা রয়েছে। কেউ একে নামাযের অংশ মনে করেন। আর কেউ একে নাজায়িয ও বেদআত বলেন। অথচ উভয় ধারণাই ভুল। প্রকৃত সত্য হল, এটা কেবল মুস্তাহাব আমল, তবে তা নামাযের অংশ নয়। সুতরাং বাড়াবাড়ি একেবারে অনুচিত।

এবিষয়ে কিছু হাদিস:
১.হযরত সালমান ফারসী রাযি. হতে বর্ণিত,

ان اللہ حی کریم، یستحی ان یرفع الرجل الیہ یدیہ ان یردھما صِفراً خائِبیْن۔

রাসূলুল্লাহ ﷺ বলেন, আল্লাহ তাআলা দয়ালু, দাতা। যখন বান্দা তাঁর সামনে প্রার্থনার হাত প্রসারিত করে তখন তা শূন্য ফিরিয়ে দিতে তিনি লজ্জ্বাবোধ করেন। (জামি’ তিরমিযী, ২/১৯৫)
২.আবূ মুহাম্মাদ ইবনু আবি ইয়াহইয়া রহ. বলেন,

رایت عبد اللہ بن الزبیر و رئیٰ رجلا رافعا یدیہ قبل ان یفرغ من صلاتہ، فلما فرغ منھا قال: ان رسول اللہ صلی اللہ علیہ و سلم لم یکن یرفع یدیہ حتی یفرغ من صلاتہ۔

আব্দুল্লাহ ইবনু যুবাইর রাযি. একজন নামাযীকে দেখলেন, সে নামায শেষ করার আগেই হাত তুলে মুনাজাত করছে। তিনি তাকে বললেন, রাসূলুল্লাহ (সা.) নামায সমাপ্ত হওয়ার আগে হাত তুলে মুনাজাত করতেন না। (মাজমাউয যাওয়াইদ, ১০/১৬৯)

৩.হযরত সালমান রাযি. থেকে বর্ণিত,

قال رسول اللہ صلی اللہ علیہ وسلم: ما رفع قوم اکفھم الی اللہ عز و جل یسئلونہ شیئا الا کان حقا علی اللہ ان یضع فی ایدیھم الذی سئلوا۔

রাসূলুল্লাহ ﷺ বলেছেন, যখন কিছু মানুষ হাত উঠিয়ে আল্লাহর কাছে কোন কিছু প্রার্থনা করে তখন অবশ্যই আল্লাহ তাদের প্রার্থিত বিষয় দান করেন। (মাজমাউয যাওয়াইদ, ১০/১৬৯)

৪.হযরত আবূ উমামাহ রাযি. হতে বর্ণিত,

قیل لرسول اللہ صلی اللہ علیہ و سلم، ای الدعاء اسمع؟ قال: جوف اللیل الآخر، و دبر الصلوات المکتوبات

সাহাবীগণ রাযিয়াল্লাহু তা`আলা আনহুম রাসূলুল্লাহ ﷺ কে জিজ্ঞেস করলেন, কোন মুনাজাত বেশি কবূল হয়? রাসূলুল্লাহ ﷺ বললেন, শেষ রাতের মুনাজাত ও ফরয নামাযের শেষের মুনাজাত। (জামি’ তিরমিযী, ২/১৮৮)
প্রিয় প্রশ্নকারী ভাই, প্রথম হাদীস থেকে বোঝা যাচ্ছে, হাত তুলে মুনাজাত করলে তা কবূলের সম্ভাবনা বেশি। দ্বিতীয় হাদীস থেকে বোঝা যাচ্ছে যে, রাসূলুল্লাহ ﷺনামাযের পর হাত তুলে মুনাজাত করতেন। তৃতীয় হাদীস থেকে বোঝা যাচ্ছে যে, কিছু মানুষ যখন আল্লাহর দরবারে সম্মিলিতভাবে মুনাজাত করেন তখন তা কবূল হওয়ার অধিক সম্ভাবনা থাকে। চতুর্থ হাদীস থেকে বোঝা যাচ্ছে যে, নামায শেষে মুনাজাত কবূল হয়। সুতরাং প্রতীয়মান হল, নামাযের পর সকলে মিলে মুনাজাত করা যাবে। তবে এ নিয়ে বাড়াবাড়ি মোটেও কাম্য নয়।

والله اعلم بالصواب
উত্তর দিয়েছেন
মাওলানা উমায়ের কোব্বাদী
 নামাযের পর মাথায় হাত রেখে দোয়া-এটা কি জায়েয?

ন্তব্য

  1. এখানে একটি হাদিসও ফরজ ছলাতের পরে সম্মিলিত মুনাজাত প্রমান করেনা!
    রসুল সঃ নামাজের পরে যদি সবাইকে নিয়ে মুনাজাত করতেন, তবে তা একজন সাহাবী হলেও বর্ণনা করতেন।

    যে কোন সময় একাকী মুনাজাত সুন্নত এবং নামাজের পরে একাকী দুয়া করা সুন্ন।
    জাঝাকাল্লহ

    • প্রথম হাদীস থেকে বোঝা যাচ্ছে, হাত তুলে মুনাজাত করলে তা কবূলের সম্ভাবনা বেশি। দ্বিতীয় হাদীস থেকে বোঝা যাচ্ছে যে, রাসূলুল্লাহ ﷺনামাযের পর হাত তুলে মুনাজাত করতেন। তৃতীয় হাদীস থেকে বোঝা যাচ্ছে যে, কিছু মানুষ যখন আল্লাহর দরবারে সম্মিলিতভাবে মুনাজাত করেন তখন তা কবূল হওয়ার অধিক সম্ভাবনা থাকে। চতুর্থ হাদীস থেকে বোঝা যাচ্ছে যে, নামায শেষে মুনাজাত কবূল হয়। সুতরাং প্রতীয়মান হল, নামাযের পর সকলে মিলে মুনাজাত করা যাবে। তবে এ নিয়ে বাড়াবাড়ি মোটেও কাম্য নয়।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

four × five =