ফেসবুকে ঢুকলে নারীর ছবি চলে আসে, তাহলে কি এর ব্যবহার হারাম হবে?

জিজ্ঞাসা–১৫৩৯: ফেসবুক চালানো কি জায়েজ নি নাকি হারাম? আবার ব্যবহার করলে তো অনেক খারাপ ছবি অনিচ্ছাকৃতভাবে চলে আসে তখন কী করব? জানালে খুশি হব…খুব দরকার!–মোঃআবু সাইদ।

জবাব: প্রিয় প্রশ্নকারী দীনি ভাই, ফেসবুকে প্রবেশ করার পেছনে যদি নগ্ন নারীদের উপভোগ ও দেখা উদ্দেশ্যে হয়, তবে সন্দেহ নেই যে, তখন তা জায়েয হবে না। কেননা, ইসলামের স্পষ্ট বিধান হল, পরনারীর দিকে তাকানো জায়েয নেই।

পক্ষান্তরে প্রবেশ যদি বৈধ সুবিধার জন্য হয়, তা দ্বীন বা পার্থিব বিষয়েই হোক না কেন; তারপর সে কিছু বেপর্দা নারীর ছবি পেল, কিন্তু সে সঙ্গে সঙ্গে স্ক্রলিং করে দৃষ্টিকে সরিয়ে নিয়েছে তাহলে তার কোনো গুনাহ হবে না। কেননা, বিধান উদ্দেশ্যের উপর নির্ভরশীল।

হাদিস শরিফে এসেছে, রাসুলুল্লাহ ﷺ আলী রাযি.-কে লক্ষ্য করে বলেছিলেন,

يا عليُّ ! لا تُتبعِ النَّظرةَ النَّظرَةَ، فإنَّ لَكَ الأولى ، ولَيسَتْ لَكَ الآخرَةُ

হে আলী! দৃষ্টির পর দৃষ্টি দিবে না। প্রথম দৃষ্টি তোমার (ক্ষমাযোগ্য) কিন্তু পরবর্তী দৃষ্টি তোমার (ক্ষমাযোগ্য) নয়। (আবু দাউদ ২১৪৯ তিরমিযী ২৭৭৭)

অন্যত্র তিনি বলেন-

مَا مِنْ مُسْلِمٍ يَنْظُرُ اِلى مَحَاسِنِ الْمَرْأَةِ اَوَّلَ مَرَّةٍ ثُمَّ يَغُضُّ بَصَرَه اِلَّا اَحْدَثَ اللهُ لَهُ عِبَادَةً يَجِدُ حَلَاوَتَهَا

কোনো মুসলিমব্যক্তি কোনো নারীর সৌন্দর্য্যের দিকে তাকাল, এরপর সে তার দৃষ্টি নামিয়ে নিল, আল্লাহ তাআলা তার অন্তরে ইবাদতের এমন স্বাদ দান করবেন, যা সে অনুভব করবে। (মুসনাদে আহমাদ ২২২৭৮)

তবে ফেসবুক ব্যবহারকারী কিছু জরুরি বিষয়ের প্রতি লক্ষ্য রাখা উচিত। যেমন,

১. ফেসবুক ব্যবহারকারীর বিচরণ, শেয়ার, লাইক, কমেন্ট এবং চ্যাট যেন লজ্জার সীমা অতিক্রম না করে। কেননা, এ ক্ষেত্রে লজ্জাবোধ একটি গুরুত্বপূর্ণ চরিত্র। এটি ঈমানেরও অঙ্গ বটে।

২. ফেসবুকে বন্ধু নির্বাচনে সতর্ক থাকতে হবে। যার ফেসবুক আপডেটগুলো আপনাকে উপকৃত করে, তিনি ওই ব্যক্তি থেকে উত্তম যে তার নিত্যনতুন আপডেটে শুধু প্রেম-ভালোবাসা কিংবা উদ্বেগ-উৎকণ্ঠার কথাই শেয়ার করে। অতএব আপনি প্রথম শ্রেণীর বন্ধু তালিকাতেই সন্তুষ্ট থাকুন।

৩. এমন কাজে সময় নষ্ট করা উচিত নয়, যাতে না দুনিয়ার কল্যাণ আছে, না আখেরাতের কল্যাণ আছে। কেয়ামতের দিন আপনাকে ফেসবুকে দেয়া অর্থহীন সময় বিষয়েও জবাবদিহি করতে হবে।

৪. লাইক শেয়ার হতে হবে ভেবে-চিন্তে। মনে রাখবেন, আপনার প্রতিটি কর্মকাণ্ড পর্যবেক্ষণ করা হচ্ছে। দুনিয়ায় যখন যা করেছি, কিয়ামতের দিন এর সব কিছুর রেকর্ডই আল্লাহ দেখিয়ে দেবেন।

নিশ্চয় আল্লাহ তাওফীকদাতা।

والله أعلم بالصواب

Leave a Reply

Your email address will not be published.

4 + sixteen =