ভুলবশতঃ নেসাবের মালিককে যাকাত দিয়ে দিলে আদায় হবে কি?

জিজ্ঞাসা–১৯৯: আসসালামু আলাইকুম। এক গরীব ও ধার্মিক ব্যক্তি কিডনি রোগে ভুগছেন। তাঁর খরচ বাবদ মাসে প্রায় ২০,০০০ টাকা খরচ হয়। আমার পরিচিত বিভিন্ন ব্যক্তি আমার মাধ্যমে তাকে আর্থিক সহযোগিতা করে আসছেন। সম্প্রতি ঐ ব্যক্তি এক উৎস হতে ৫০,০০০ টাকা অনুদান পেয়েছিলেন, কিন্তু সেটা আমার জানা ছিল না। আমার ভাই তাকে যাকাত বাবদ ৫,০০০ টাকা দিয়েছেন। আমার আরেক পরিচিত ব্যক্তি যখন তাকে আরও কিছু যাকাতের অর্থ দিতে চাইলেন, তখন আমি অসুস্থ ব্যক্তির নিকট তাঁর জমা অর্থের পরিমান জানতে চাইলাম। তিনি তখন উপরোক্ত অনুদানের কথা জানালেন। সাকুল্যে তাঁর নিকট প্রায় ৮০,০০০ টাকার মত আছে। এখন যেহেতু উক্ত ব্যাক্তির সম্পদের পরিমান রূপার নিসাবের চেয়ে বেশি, তাঁকে কি নতুন করে যাকাতের অর্থ দেয়া যাবে? যে ৫০০০ টাকা ইতোপূর্বে যাকাত হতে দেয়া হয়েছে তা কি ফেরত নিতে হবে? (আমার বিশ্বাস, উনার কাছে ফেরত চাইলে উনি তা ফেরত দিবেন, ইনশাল্লাহ) জাযাকুমুল্লাহ।— আনোয়ার

জবাব: ওয়ালাইকুমুসসালাম। যেহেতু উক্ত ব্যক্তি নিজেই নেসাবের মালিক হয়ে গিয়েছে, তাই তাকে যাকাত পুনরায় দেয়া যাবে না। আর যে ৫০০০ টাকা ইতিপূর্বে তাকে যাকাতের হকদার মনে করে দিয়েছেন তাও আপনার জন্য ফেরত নেয়া জরুরি নয়। তবে আপনার জন্য জরুরি না হলেও তার কর্তব্য হল ফেরত দেয়া। ফতওয়ার কিতাবে এসেছে,

”কোনো লোককে যাকাতের উপযুক্ত মনে হওয়ায় তাকে যাকাত দেওয়া হল, কিন্তু পরবর্তীতে প্রকাশ পেল যে, লোকটির নিসাব পরিমাণ সম্পদ রয়েছে তাহলেও যাকাত আদায় হয়ে যাবে। পুনরায় যাকাত দিতে হবে না। তবে যাকে যাকাত দেওয়া হয়েছে সে যদি জানতে পারে যে, এটা যাকাতের টাকা ছিল সেক্ষেত্রে তার ওপর তা ফেরৎ দেওয়া ওয়াজিব।” (রদ্দুল মুহতার ২/৩৫২ যাকাত কে মাসাইল কা ইন্সাইক্লোপিডিয়া পৃ ৩২৪)

والله اعلم بالصواب
উত্তর দিয়েছেন
শায়েখ উমায়ের কোব্বাদী
আরো পড়ুন