মাজারে গিয়ে মাথা নত করা যাবে কিনা?

জিজ্ঞাসা–২৮৮: আসসলামুআলাইকুম, আমরা দেখতে পাই যে, অনেকে পীরের কবরে বা মাজারে গিয়ে মাথা নত করে। এটা করা যাবে কিনা? কোরআন-হাদীসের আলোকে উত্তর দিবেন। — SEIKH NAWAJ SARIF : [email protected]

জবাব: وعليكم السلام ورحمة الله وبركاته

প্রিয় দ্বীনী ভাই,খালেস তাওহিদ প্রতিষ্ঠার লক্ষে ইসলাম-ধর্মে শিরকের পাশাপাশি শিরক প্রবেশের দরজা-জানালাও চিরতরের জন্য বন্ধ করে দেয়া হয়েছে। একারণে কবর সংক্রান্ত যে সব বিষয় রাসূলুল্লাহ শিক্ষা দিয়েছেন (যথা যিয়ারত, সালাম ও দুআ) সেগুলো ছাড়া অন্য কোনো কিছু করার বিন্দুমাত্র অবকাশ ইসলামে নেই। ইসলামের দৃষ্টিতে কবর-মাজারকে সম্মানসূচক সিজদা করা, গিলাফ চড়ানো, চুমু খাওয়া, তাতে বাতি জ্বালানো, তার সামনে মাথা নোয়ানো-এগুলো বড় গুনাহ ও শিরকী কাজ। এ বিষয়ে কোরআন-হাদিসে অনেক দলীল রয়েছে। নিম্নে এ সংক্রান্ত কয়েকটি দলীল রেফারেন্সসহ পেশ করা হল। 

১. কোরআন মজিদে আল্লাহ তাআলা বলেন- وَّ اَنَّ الْمَسٰجِدَ لِلّٰهِ فَلَا تَدْعُوْا مَعَ اللّٰهِ اَحَدًاۙ

নিশ্চয়ই সিজদার স্থানসমূহের মালিক আল্লাহ তাআলা। অতএব তোমরা তার সাথে কারো ইবাদত করো না। (সূরা জিন ১৮)

এ আয়াতের ব্যাখ্যায় প্রসিদ্ধ তাবেয়ী সায়ীদ ইবনে জুবায়ের, আতা,তলক ইবনে হাবীব প্রমুখ মুফাসসিরগণ বলেন, উক্ত আয়াতের সিজদার স্থানসমূহ দ্বারা উদ্দেশ্য সিজদার অঙ্গপ্রত্যঙ্গ। অর্থাৎ এগুলোর মালিক আল্লাহ। অতএব এগুলো দ্বারা আল্লাহ ছাড়া আর কাউকে সিজদা করো না। (তাফসীরে ইবনে কাসীর ৪/৬৭৬; তাফসীরে কুরতুবী ১৯/১৪; তাফসীরে রুহুল মাআনী ২৯/৯১)

২. সহীহ বুখারির হাদিসে এসেছে, রাসূল ﷺ  বলেছেন,

لَعَنَ اللَّهُ الْيَهُودَ وَالنَّصَارَى، اتَّخَذُوا قُبُورَ أَنْبِيَائِهِمْ مَسَاجِدَ

ইহুদী ও নাসারাদের প্রতি আল্লাহর লা’নত হোক। কারণ, তারা নিজেদের নাবীগণের কবরকে সিজদার স্থানে পরিণত করেছে। (সহীহ বুখারী ১৩০৭)

. সহীহ মুসলিমের হাদিসে এসেছে,

حَدَّثَنِي جُنْدَبٌ، قَالَ: سَمِعْتُ النَّبِيَّ قَبْلَ أَنْ يَمُوتَ بِخَمْسٍ، وَهُوَ يَقُولُ: ……أَلَا وَإِنَّ مَنْ كَانَ قَبْلَكُمْ كَانُوا يَتَّخِذُونَ قُبُورَ أَنْبِيَائِهِمْ وَصَالِحِيهِمْ مَسَاجِدَ، أَلَا فَلَا تَتَّخِذُوا الْقُبُورَ مَسَاجِدَ، إِنِّي أَنْهَاكُمْ عَنْ ذَلِكَ

হযরত জুনদুব রাযি. থেকে বর্ণিত, তিনি বলেন, রাসূল ﷺ  মৃত্যুর পূর্বে পাঁচটি বিষয় বলেছিলেন, [এর মাঝে]…… বলেন, তোমাদের পূর্ববর্তী কত উম্মত স্বীয় নবী ও বুজুর্গদের কবরকে সেজদার স্থান বানিয়েছে। সাবধান! তোমরা কবরকে সেজদার স্থান বানিও না। আমি তোমাদের তা হতে বারণ করছি। (সহীহ মুসলিম ৫৩২)

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

2 × 4 =