সুদি ব্যাংক থেকে লোন নেয়া যাবে কিনা?

জিজ্ঞাসা–১৫৮২: সুদি ব্যাংক থেকে লোন নেয়া যাবে কিনা?–A.Muntakim

জবাব: ব্যাংক এমন এক বাণিজিক-প্রতিষ্ঠানের নাম; যে জনসাধারণের অর্থ নিজের কাছে জমা ও সঞ্চয় করে ব্যবসায়ী, শিল্পপতি এবং অন্যান্য অভাবী ব্যক্তিদেরকে প্রয়োজনে ঋণ সরবরাহ করে থাকে। বর্তমানে গতানুগতিক ব্যাংকগুলো ঐ ঋণের উপর সূদ আদায় করে।

সুতরাং অপেক্ষা রাখে না যে, সুদি ব্যাংক থেকে লোন নেয়া হারাম। ঈমানের পূর্ণতার জন্য অপরিহার্য শর্ত হল, সুদ ও যাবতীয় হারাম পন্থা পরিহার করে বৈধ উপায় গ্রহণ করা। কেননা, আল্লাহ তাআলা বলেছেন,

یٰۤاَیُّهَا الَّذِیْنَ اٰمَنُوا اتَّقُوا اللهَ وَ ذَرُوْا مَا بَقِیَ مِنَ الرِّبٰۤوا اِنْ كُنْتُمْ مُّؤْمِنِیْنَ فَاِنْ لَّمْ تَفْعَلُوْا فَاْذَنُوْا بِحَرْبٍ مِّنَ اللهِ وَ رَسُوْلِهٖ.

হে ঈমানদারগণ! তোমরা আল্লাহকে ভয় করো এবং সুদের যা কিছু অবশিষ্ট আছে তা পরিত্যাগ করো। যদি তোমরা মুমিন হও। যদি তা না কর তবে আল্লাহ ও তাঁর রাসূলের পক্ষ থেকে যুদ্ধের সংবাদ জেনে নাও। (সূরা বাকারা  ২৭৮-২৭৯)

হাদীস শরীফে এসেছে, জাবের রাযি. বলেন,

لَعَنَ رَسُولُ اللهِ ﷺ آكِلَ الرِّبَا، وَمُؤْكِلَهُ، وَكَاتِبَهُ، وَشَاهِدَيْهِ، وَقَالَ: هُمْ سَوَاءٌ

রাসূলুল্লাহ ﷺ সুদ ভক্ষণকারী, সুদ প্রদানকারী, সুদের লেখক এবং সাক্ষীগণকে অভিসম্পাত করেছেন এবং বলেছেন, (গুনাহের ক্ষেত্রে) তারা সবাই বরাবর। (মুসলিম ১৫৯৮)

অপর হাদীসে এসেছে, রাসূলুল্লাহ ﷺ বলেছেন,

الرِّبا وإنْ كثُرَ، فإنَّ عاقِبتَه تَصيرُ إلى قُلٍّ

সূদের (উন্নতির) পরিমাণ যত বেশীই হোক না কেন; পরিণামে তা কম হতে বাধ্য। (আহমাদ ৩৭৫৪ ইবনে মাজাহ ২২৭৯)

والله أعلم بالصواب
উত্তর দিয়েছেন

Leave a Reply

Your email address will not be published.

twelve − 5 =