সূরাসমূহের নাম রেখেছেন কে?

জিজ্ঞাসা–৩৪৯: আস্সালামুআলাইকুম। হযরত, পবিত্র কোরআন শরীফ এর সূরা সমূহের নামকরণ কি আল্লাহ কর্তৃক নাকি নবীজী (স) কর্তৃক করা হয়েছে?– মুহাম্মদ মেহেদী হাসান: [email protected]

জবাব: وعليكم السلام ورحمة الله وبركاته

সূরাসমূহের নামকরণ আল্লাহ কর্তৃক নির্ধারিত। রাসূলুল্লাহ ﷺ ওহির মাধ্যমে অবগত হয়ে তা উম্মতকে জানিয়ে দিতেন।

জালালুদ্দিন সুয়ুতি রহ. বলেন, কোরআন মজিদের আয়াতসমূহের বিন্যাস ও সূরাসমূহের নামকরণ সবই আল্লাহ কর্তৃক নির্ধারিত। (আল ইতকান ১/১৪৮)

শায়েখ সুলাইমান আল্বুজাইরমি রহ. বলেন, أخبره جبريل عليه السلام بأنها هكذا في اللوح المحفوظ জিবরীল আ. রাসূলুল্লাহ ﷺ-কে সংবাদ দিয়েছেন যে, এভাবেই লাউহে মাহফুযে আছে। (তুহফাতুল হাবীব আলা শারহিল খাতীব ২/১৬৩)

আল্লামা তাহির ইবন আশুর রহ. বলেন, أما أسماء السور فقد جُعلت لها من عهد نزول الوحي সূরাসমূহের নাম ওহি নাযিলের সময় থেকেই নির্ধারিত। (আত তাহরীর ওয়াততানবীর ১/৮৮)

আব্দুল্লাহ ইবনে আববাস রাযি. বলেন, হযরত উসমান রাযি. বলেছেন যে,

 كَانَ النَّبِيُّ صلى الله عليه وسلم مِمَّا يَنْزِلُ عَلَيْهِ الآيَاتُ فَيَدْعُو بَعْضَ مَنْ كَانَ يَكْتُبُ لَهُ وَيَقُولُ لَهُ ‏ “‏ ضَعْ هَذِهِ الآيَةَ فِي السُّورَةِ الَّتِي يُذْكَرُ فِيهَا كَذَا وَكَذَا ‏”‏ ‏.‏ وَتَنْزِلُ عَلَيْهِ الآيَةُ وَالآيَتَانِ فَيَقُولُ مِثْلَ ذَلِكَ وَكَانَتِ الأَنْفَالُ مِنْ أَوَّلِ مَا أُنْزِلَ عَلَيْهِ بِالْمَدِينَةِ وَكَانَتْ بَرَاءَةُ مِنْ آخِرِ مَا نَزَلَ مِنَ الْقُرْآنِ وَكَانَتْ قِصَّتُهَا شَبِيهَةً بِقِصَّتِهَا فَظَنَنْتُ أَنَّهَا مِنْهَا فَمِنْ هُنَاكَ وَضَعْتُهُمَا فِي السَّبْعِ الطُّوَلِ وَلَمْ أَكْتُبْ بَيْنَهُمَا سَطْرَ ‏{‏ بِسْمِ اللَّهِ الرَّحْمَنِ الرَّحِيمِ ‏}‏ ‏.‏

যখন রাসূলুল্লাহ ﷺ-এর উপর কোন আয়াত নাযিল হত, তখন তিনি অহী-লেখক কাউকে ডেকে বলতেন, এই আয়াতটি অমুক সূরার মধ্যে অমুক স্থানে রাখো। তাঁর উপর একটি কিংবা দু’টি আয়াত অবতীর্ণ হলেও তিনি ঐরূপ বলতেন। সূরা আনফাল প্রথম দিককার মাদানী সূরা এবং সূরা তওবা শেষের দিককার মাদানী সূরা। দু’টি সূরার বিষয়বস্তু প্রায় একই। সেজন্য সূরা দু’টিকে আমি পাশাপাশি রেখেছি। সেজন্য আমি দু’টি সূরার মাঝে বিসমিল্লাহ.. লিখিনি’। (আবু দাঊদ৭৮৬)

এতে বুঝা যায় যে, কোরআনের বিন্যাস আল্লাহ কর্তৃক নির্ধারিত।

জিবরীল আ. প্রতিবছর রামাযানে রাসূল ﷺ-এর নিকটে এসে কুরআন পাঠ করতেন এবং তাঁর মৃত্যুর বছরে দু’বার পাঠ করে শুনান। (বুখারী হা/৪৯৯৭, ৪৯৯৮) এখান থেকেও বিষয়টি সুস্পষ্টভাবে প্রমাণিত হয়। 

والله اعلم بالصواب
উত্তর দিয়েছেন
মাওলানা উমায়ের কোব্বাদী

আরো পড়ুন–

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

14 − two =