স্ত্রীর মোহর আদায়ে ফাঁকিবাজি করা

জিজ্ঞাসা–১৩৬২: মোহরানা যদি টাকায় নির্ধারণ করা হয় তাহলে কি গয়না দিয়ে তা আদায় হবে, সেই গয়না যদি বিক্রি করার মতো না হয়, স্বামীর পরিবারের বিশেষ স্মৃতি বহন করে আর মোহরের পুরো টাকা পরিশোধ হয় না। গয়নার দাম বের করে যদি মোহরের টাকার সমান হয়, তাহলে কি বাকী টাকা পরিশোধ করতে হবে না?–শম্পা।

জবাব: গয়না মোহর হিসেবে ধরা যাবে। (আপ কে মাসায়িল ৫/১৫৫)

তবে মোহর একটি স্বয়ংসম্পূর্ণ লেনদেন। অতএব এর যাবতীয় দিক শরীয়ত অনুযায়ী ও পরিষ্কারভাবে হওয়া উচিত এবং সে হিসেবেই তা পরিশোধের চিন্তা-ভাবনা করা উচিত। এটি বড়ই অন্যায় কথা যে, স্ত্রীর আল্লাহপ্রদত্ত এই হক ‘স্বামীর পরিবারের বিশেষ স্মৃতি বহন’-এর নামে তার মালিকানার স্বাধীনতা খর্ব করা। বরং স্ত্রীর এই হক তার কাছে পৌঁছে দিয়ে তাকে মালিক বানিয়ে দিতে হবে, যেন স্বাধীনভাবে বৈধ পথে খরচ করতে পারে।

অনুরূপভাবে স্ত্রীর মোহর ফাঁকি দেয়াও অতি হীন কাজ। কারণ এর অর্থ দাঁড়ায়, ভোগ করতে রাজি, কিন্তু বিনিময় দিতে রাজি নয়। যে স্বামীর মনে স্ত্রীর মোহর আদায়ের ইচ্ছাটুকুও নেই হাদীস শরীফে (মাজমাউয যাওয়াইদ ৪/৫২২-৫২৩) তাকে বলা হয়েছে ‘ব্যাভিচারী’। আল্লাহ তাআলা তো বলেছেন,

وَآتُوا النِّسَاءَ صَدُقَاتِهِنَّ نِحْلَةً

এবং তোমরা নারীদেরকে দাও তাদের মোহর খুশিমনে। (সূরা নিসা ৪)

বিস্তারিত দেখুন জিজ্ঞাসা নং–১৪৭।

والله اعلم بالصواب

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *