মেডিটেশন (meditation) বা যোগ ব্যায়াম (yoga) হারাম কেন?

জিজ্ঞাসা–৪৮৮: আসসালামু আলাইকুম। ইসলামে মেডিটেশন/যোগ ব্যায়াম করা জায়েজ আছে কি? –নোমান.

জবাব: وعليكم السلام ورحمة الله

মেডিটেশন (meditation) যোগ ব্যায়াম (yoga) মূলতঃ একটি শয়তানী ফাঁদ; যা নিঃসন্দেহে হারাম। কেন হারাম; সংক্ষেপে এর কয়েকটি কারণ উল্লেখ করা হল–

১- এটি মূলতঃ হাজার বছর পূর্বে ফেলে আসা হিন্দু-বৌদ্ধ-খৃষ্টান পাদ্রী ও যোগী-সন্ন্যাসীদের যোগ-সাধনার আধুনিক কলা-কৌশলের নাম। (yoga and breathing by Muhammad ‘Abd al-Fattaah Faheem p. 19)

অথচ রাসূলুল্লাহ  বলেছেন, لَيْسَ مِنَّا مَنْ تَشَبَّهَ بِغَيْرِنَا، لَا تَشَبَّهُوا بِاليَهُودِ وَلَا بِالنَّصَارَى যে অন্য সম্প্রদায়ের সাথে সাদৃশ্য বা মিল রেখে চলে, সে আমাদের দলভুক্ত নয়, তোমরা ইয়াহূদী ও নাসারাদের সাথে সাদৃশ্য রেখো না। (তিরমিযী ২৬৯৫)

২- মেডিটেশনের লক্ষ্য হ’ল অন্তর্গুরুকে পাওয়া। তাদের ভাষায়, ‘মেডিটেশনের মাধ্যমেই আপনি সংযোগ সাধন করতে পারেন আপনার  ‘অন্তরের আমি’র  সাথে, আপনার শক্তির মূল উৎসের সাথে।’(http://question.quantummethod.org.bd)

মেডিটেশনের এই দৃষ্টিভঙ্গি ইসলামের দৃষ্টিতে মারাত্মক অপরাধ। মূলতঃ ‘অন্তরের আমি’ হল নফসে আম্মারা; যার অনুসরণের পরিণতি হল জাহান্নাম। এদেরকে লক্ষ্য করেই আল্লাহ বলেন,

 أَرَأَيْتَ مَنِ اتَّخَذَ إِلَٰهَهُ هَوَاهُ أَفَأَنتَ تَكُونُ عَلَيْهِ وَكِيلًا-أَمْ تَحْسَبُ أَنَّ أَكْثَرَهُمْ يَسْمَعُونَ أَوْ يَعْقِلُونَ ۚ إِنْ هُمْ إِلَّا كَالْأَنْعَامِ ۖ بَلْ هُمْ أَضَلُّ سَبِيلًا

আপনি কি দেখেছেন ঐ ব্যক্তিকে, যে তার প্রবৃত্তিকে উপাস্যরূপে গ্রহণ করে? তবুও কি আপনি তার যিম্মাদার হবেন? আপনি কি মনে করেন যে, তাদের অধিকাংশ শোনে অথবা বোঝে ? তারা তো চতুস্পদ জন্তুর মত; বরং আরও পথভ্রান্ত। (সূরা ফুরক্বান ৪৩-৪৪)

৩- মেডিটেশনের একটি দাবী হচ্ছে, ‘ভ্রান্ত ধারণা ও সংস্কারের শৃঙ্খল মুক্তির পথ হচ্ছে মেডিটেশন।’ (কোয়ান্টাম টেক্সটবুক)

ইসলামের দৃষ্টিতে এটি একটি মারাত্মক ভুল দাবী। কেননা, আল্লাহ প্রদত্ত ও  রাসূল প্রদর্শিত চির কল্যাণময়, শান্তি ও মুক্তির একমাত্র পথ ইসলাম। ইসলামের মাঝেই রয়েছে মানবজাতির যাবতীয় ভ্রান্ত ধারণার উপশম এবং মানুষের তৈরি  শৃঙ্খল থেকে মুক্তি পাওয়ার কার্যকরী ব্যবস্থা। মহান আল্লাহ কত দ্ব্যর্থহীন ভাষায় বলেছেন,

كِتَابٌ أَنزَلْنَاهُ إِلَيْكَ لِتُخْرِجَ النَّاسَ مِنَ الظُّلُمَاتِ إِلَى النُّورِ

এটি সেই কিতাব যা আমি তোমার প্রতি নাযিল করেছি যেন তুমি মানুষকে বের করে আন অনেক অন্ধকার থেকে এক আলোর দিকে। (সূরা ইবরাহীম ০১)

৪- মেডিটেশনের দৃষ্টিভঙ্গি হল, মন সকল শক্তির উৎস চেতনা অবিনশ্বর, প্রাণ রহস্যের চাবিকাঠি।’ (কোয়ান্টাম টেক্সটবুক)

মেডিটেশনের এ বিশ্বাস ও  দৃষ্টিভঙ্গি পরিস্কারভাবে কুফর ও শিরক। কেননা, ইসলাম কেবল আল্লাহকেই সকল শক্তির মূল উৎস ও সাফল্যের চাবিকাঠি মনে করে। অন্য কোন কিছু সকল শক্তির উৎস, অবিনশ্বর, প্রাণ রহস্যের চাবিকাঠি মনে করা বা বিশ্বাস করা আল্লাহর সাথে সুস্পষ্ট শিরক। আল্লাহ বলেন,

وَمِنَ النَّاسِ مَن يَتَّخِذُ مِن دُونِ اللّهِ أَندَاداً يُحِبُّونَهُمْ كَحُبِّ اللّهِ وَالَّذِينَ آمَنُواْ أَشَدُّ حُبًّا لِّلّهِ وَلَوْ يَرَى الَّذِينَ ظَلَمُواْ إِذْ يَرَوْنَ الْعَذَابَ أَنَّ الْقُوَّةَ لِلّهِ جَمِيعاً وَأَنَّ اللّهَ شَدِيدُ الْعَذَابِ
আর কোন লোক এমনও রয়েছে যারা অন্যান্যকে আল্লাহর সমকক্ষ সাব্যস্ত করে এবং তাদের প্রতি তেমনি ভালবাসা পোষণ করে, যেমন আল্লাহর প্রতি ভালবাসা হয়ে থাকে। কিন্তু যারা আল্লাহর প্রতি ঈমানদার তাদের ভালবাসা ওদের তুলনায় বহুগুণ বেশী। আর কতইনা উত্তম হ’ত যদি এ জালেমরা পার্থিব কোন কোন আযাব প্রত্যক্ষ করেই উপলব্ধি করে নিত যে, যাবতীয় ক্ষমতা শুধুমাত্র আল্লাহরই জন্য এবং আল্লাহর আযাবই সবচেয়ে কঠিনতর। (সূরা বাকারা ১৬৫)
৫- কোয়ান্টাম টেক্সটবুক-এ আছে, শিথিলায়ন প্রক্রিয়ায় মানুষের মধ্যে এমন এক ক্ষমতা তৈরী হয়, যার দ্বারা সে নিজেই নিজের চাওয়া-পাওয়া পূরণ করতে পারে…। ইচ্ছা করেছেন; ঘটনা ঘটেছে। ইচ্ছা করেছেন; মানুষ রোগমুক্ত হয়েছে। আপনিও এ চাবিকাঠিকে কাজে লাগিয়ে অর্জন করতে পারেন অতিচেতনা।’
মুলতঃএ ধরনের বিশ্বাস ও কর্ম-তৎপরতা পরিস্কার কুফর ও শিরক। ‘কুন’ শব্দ ব্যবহারে ইচ্ছার মাধ্যমে যে কোন ঘটানোর মালিক একমাত্র আল্লাহ। কোয়ান্টাম মেডিটেশনে এই ‘কুন’ শব্দ ব্যবহারের মাধ্যমে ইচ্ছা শক্তির প্রতিফলন সুস্পষ্ট শিরক। আল্লাহ বলেন,
إِنَّمَا أَمْرُهُ إِذَا أَرَادَ شَيْئًا أَنْ يَقُولَ لَهُ كُنْ فَيَكُونُ فَسُبْحَانَ الَّذِي بِيَدِهِ مَلَكُوتُ كُلِّ شَيْءٍ وَإِلَيْهِ تُرْجَعُونَ
যখন তিনি কোন কিছু করার ইচ্ছা করেন, তখন তাঁকে কেবল বলতে হয় হও-ফলে তা হয়ে যায়। অতএব মহাপবিত্র ও মহাপ্রশংসিত আল্লাহ। তাঁর হাতে আছে সকল বিষয়ের সকল ক্ষমতা। আর তাঁর নিকটেই তোমাদেরকে ফিরে যেতে হবে।(সূরা ইয়াসীন ৮২-৮৩)

৬- কোয়ান্টাম টেক্সটবুক-এ আছে,, ‘শিথিলায়ন প্রক্রিয়ায় মানুষের মধ্যে এমন এক ক্ষমতা তৈরী হয়, যার দ্বারা সে নিজেই নিজের চাওয়া-পাওয়া পূরণ করতে পারে। এজন্য একটা গল্প বর্ণনা করা হয়েছে যে, এক ইঞ্জিনিয়ার সপরিবারে আমেরিকায় বসবাস করার মনছবি দেখতে লাগল। ফলে সে ডিভি ভিসা পেয়ে গেল। তারপর সেখানে ভাল একটা চাকুরীর জন্য মনছবি দেখতে লাগল। ফলে সেখানে যাওয়ার দেড় মাসের মধ্যেই উন্নতমানের একটা চাকুরী পেয়ে গেল।’অথচ ইসলাম মানুষকে তাকদীরে বিশ্বাস রেখে বৈধভাবে সর্বোচ্চ চেষ্টা করতে বলে। আল্লাহ বলেন,

قُلْ لَنْ يُصِيْبَنَا إِلاَّ مَا كَتَبَ اللهُ لَنَا هُوَ مَوْلَانَا

বলে দিন, আল্লাহ আমাদের ভাগ্যে যা লিখে রেখেছেন, তা ব্যতীত কিছুই আমাদের নিকট পৌঁছবে না। তিনিই আমাদের অভিভাবক। (সূরা তওবা ৫১)

৭- উক্ত বইয়ের মধ্যে শিথিলায়ন প্রক্রিয়াকে আস্তিক-নাস্তিক, দরবেশ-ঋষি, মুসলিম-অমুসলিম সবার জন্য আত্মিক উন্নতির পথ হিসাবে ঘোষণা করা হয়েছে। ইসলাম সম্পর্কে যার নুন্যতম জ্ঞান রয়েছে তিনিও এই দাবীর অসারতা উপলব্ধি করতে সক্ষম হবেন। ইসলামের বিধান অনুযায়ী আত্মিক উন্নতির পথ নির্ধারিত। এর সাথে বুদ্ধ, যোগী, সন্যাসী, ঋষিদের অনুসৃত শিথিলায়ন পদ্ধতির কোন সম্পর্ক নাই। আল্লাহ বলেন,
وَمَن يَبْتَغِ غَيْرَ الْإِسْلَامِ دِينًا فَلَن يُقْبَلَ مِنْهُ وَهُوَ فِي الْآخِرَةِ مِنَ الْخَاسِرِينَ
যে লোক ইসলাম ছাড়া অন্য কোন ধর্ম তালাশ করে, কস্মিণকালেও তা গ্রহণ করা হবে না এবং আখেরাতে সে ক্ষতিগ্রস্থ। (সুরা ইমরান ৮৫ )
৮- বইটির সংশ্লিষ্ট অংশে বলা হয়েছে, ‘কথিত আছে অলৌকিক শক্তিবলে ঋষিরা ইসম বা মন্ত্র উচ্চারণ করতেন আর যাদুর মত সব ঘটনা ঘটে যেত। যে কোন ঋষিরা মন্ত্র উচ্চারণের আগে বছরের পর বছর ইসম বা মন্ত্র জপ করতেন বা জিকির করতেন। এগুলোর মধ্যে রয়েছে আল্লাহ, ইয়াহু, ইয়া হক, ওম ইত্যাদি। ধর্মবহির্ভূত ধ্যানীরা নিজের পছন্দমত কোন শব্দ লক্ষ লক্ষবার উচ্চারণ করেন। তাদের বিশ্বাস এইভাবে অগণিতবার উচ্চারণের ফলে এই ধ্বনি এমন এক মনোদৈহিক স্পন্দন সৃষ্টিতে সহায়ক হয় যার ফলে সে তার মনোদৈহিক শক্তি পুরোপুরি একাগ্রভাবে ব্যবহার করতে সক্ষম হয়।’
এর মাধ্যমে মূলতঃ তারা দাওয়াত দিচ্ছে, র্সবশ্বেরবাদের প্রতি; যা একাধারে কুফর ও শিরক। ইসলামে মুনী-ঋষি বা যোগী-সন্যাসীদের ন্যায় এ ধরনের ইসম বা মন্ত্রজপ বা জিকিরের কোন অস্তিত্ব নাই। যার মধ্যে ইসলামের নুন্যতম শিক্ষা রয়েছে, তিনি অবশ্যই বৌদ্ধ, যোগী-ঋষি ও হিন্দু সন্যাসীদের পথ পরিহার করবেন এবং সর্বদা রাসুলুল্লাহ -এর পথ অনুসরণ করবেন। আল্লাহ বলেন,
وَمَن يُطِعِ اللَّهَ وَرَسُولَهُ فَقَدْ فَازَ فَوْزًا عَظِيمًا
যে কেউ আল্লাহ ও তাঁর রসূলের আনুগত্য করে, সে অবশ্যই মহা সাফল্য অর্জন করবে। (সুরা আহযাব ৭১)

৯- অন্যান্য বিদ‘আতীদের ন্যায় এরাও কোরআন-হাদীসের অপব্যাখ্যা করেছে মুসলমানদের ধোঁকা দিয়ে দলে ভিড়ানোর জন্য।যেমন- তারা সূরা জিন-এর ২৬ ও ২৭ আয়াতের অপব্যাখ্যা করে বলেছেন, আল্লাহ যাকে ইচ্ছা গায়েবের খবর জানাতে পারেন। অতএব যে যা জানতে চায় আল্লাহ তাকে সেই জ্ঞান দিয়ে দেন’ (প্রশ্নোত্তর ১৭৫৩)

অথচ উক্ত আয়াতে বলা হয়েছে যে, আল্লাহ তাঁর মনোনীত রাসূল ছাড়া তাঁর অদৃশ্যের জ্ঞান কারু নিকট প্রকাশ করেন না। এ সময় তিনি সামনে ও পিছনে প্রহরী নিযুক্ত করেন’। অর্থাৎ আল্লাহ তাঁর রাসূলের নিকট ‘অহি’ প্রেরণ করেন এবং তাকে শয়তান থেকে নিরাপদ রাখেন। এই ‘অহি’-টাই হ’ল গায়েবের খবর, যা কোরআন-হাদীস আকারে আমাদের কাছে মওজুদ রয়েছে।

১০- সাধারণত মানুষ মেডিটেশন (meditation) করে অন্তরের প্রশান্তির জন্য। অথচ আল্লাহ বলেন, মেডিটেশনে নয়; বরং أَلا بِذِكْرِ اللَّهِ تَطْمَئِنُّ الْقُلُوب জেনে রাখ, আল্লাহর স্মরণ দ্বারাই অন্তরসমূহ প্রশান্ত হয়। ( সূরা রাদ ২৮)

প্রিয় প্রশ্নকারী ভাই, এখানে মাত্র ১০ টি উল্লেখ করা হল। অন্যথায় এরকম আরো অনেক কারণ রয়েছে; যেগুলো এটা প্রমাণ করে যে, মেডিটেশন (meditation) যোগ ব্যায়াম (yoga)-এর পুরা কনসেপ্টটাই হল, কুফর-শিরক ও বেদআত নির্ভর। সুতরাং এটা যে হারাম-এই সন্দেহ করাটাও ‘হারাম’ হবে।

والله اعلم بالصواب
উত্তর দিয়েছেন
মাওলানা উমায়ের কোব্বাদী
আরো পড়ুন–
সুস্বাস্থ্যের জন্য আমল ও দোয়া
পড়ালেখার প্রতি মনোযোগী এবং স্মরণশক্তি বৃদ্ধি করার আমল
শুচিবায়ু থেকে মুক্তির উপায় কী?
মনের সাহস বাড়ানোর আমল
 ঋণ পরিশোধের দোয়া
বিধর্মীর ঘরে জন্ম নেয়া মানে কি আল্লাহ্‌র রহমত থেকে বঞ্চিত হওয়া?
রুহ বা আত্মার মৃত্যু হয় কিনা?

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

four × 3 =