সহবাসের উদ্দেশে তালাকের নিয়তে বিয়ে করা যাবে কি?

জিজ্ঞাসা–৬৬৭: কোন মেয়েকে দেখে পছন্দ হ‌ওয়ার পর যেনার গুনাহ থেকে বাঁচার জন্য কেউ সহবাসের নিয়তে বিয়ে করল কিছুদিন পর তার প্রাপ্য মোহরানা দিয়ে বিদায় করে দিবে এ নিয়তে বিয়ে করলে বিয়ে হবে । কিছুদিন যাওয়ার পর যখন তালাক দিল তখন মোহরানা পেয়ে মেয়েটাও খুশি । এতে কি তাদের গুনাহ হবে?( এখানে ঐ লোকটা নিজের চাহিদা মেটাতে এর আগেও কয়েকবার বিয়ে করেছিল এবং সবার প্রাপ্য মোহরানা দিয়ে তালাক দিয়েছিল)। –Abdul Ali Roni

জবাব: ইসলামে এ ধরনের বিবাহের অনুমতি নেই। ফাতাওয়া লাজনাতিদ্দায়িমা (আরব বিশ্বের সর্বোচ্চ ফতোয়া কমিটি)-কে জিজ্ঞাসা করা হয়েছিল যে,

انتشر بين أوساط الشباب السفر خارج البلاد للزواج بنية الطلاق ، والزواج هو الهدف في السفر استناداً على فتوى بهذا الخصوص ، وقد فهم الكثير من الناس الفتوى خطأ ، فما حكم هذا ؟ .

‘তালাকের নিয়তে বিবাহ করার জন্য দেশের বাইরে সফর করা যুবকদের মাঝে ব্যাপকতা লাভ করেছে। বিয়ে করাটাই সফরের লক্ষ্য স্থির করা হয়। যার দলিল তারা একটি বিশেষ ফতয়াকে দিয়ে থাকে। অধিকাংশ লোক ওই ফতওয়া না বুঝে তার থেকে ভুল অর্থ নিয়ে থাকে। আসলে এ বিষয়ে বিধান কী?’

কমিটির ওলামায়ে কেরাম উত্তরে লিখেছেন,

الزواج بنية الطلاق زواج مؤقت ، والزواج المؤقت زواج باطل ؛ لأنه متعة ، والمتعة محرمة بالإجماع ، والزواج الصحيح : أن يتزوج بنية بقاء الزوجية ، والاستمرار فيها ، فإن صلحت له الزوجة وناسبت له وإلا طلقها ، قال تعالى : ( فَإِمْسَاكٌ بِمَعْرُوفٍ أَوْ تَسْرِيحٌ بِإِحْسَانٍ ) البقرة/229

‘তালাকের নিয়তে বিবাহ–এটি একটি অস্থায়ী বিবাহ। আর এ ধরণের স্বল্প সময়ের বিবাহ বাতিল। কেননা এটি একপ্রকার মুতা’ তথা প্রমোদ-বিবাহ; যা ওলামায়ে কেরামের ঐকমত্যে হারাম। সহিহ পদ্ধতির বিয়ে হল, বিবাহ করা হবে স্থায়ীভাবে বসবাসের নিয়তে। তারপর যদি বিবাহ-বন্ধন নিরাপদ হয় এবং স্ত্রী তার স্বামীর জন্য উপযোগী হয় তাহলে তাকে রাখবে অন্যথায় তাকে তালাক দিবে। আল্লাহ তাআলা বলেন, অতঃপর বিধি মোতাবেক রেখে দেবে কিংবা সুন্দরভাবে ছেড়ে দেবে। (সূরা বাকারা ২২৯)।’  (ফাতাওয়া লাজনাতিদ্দায়িমা ১৮/৪৪৮, ৪৪৯)

উল্লখ্য, শী‘আ রাফেযীরা এখনও এই  ধরনের বিবাহকে জায়েয মনে করে থাকে, অথচ তাদেরই অন্যতম ইমাম জা‘ফর ছাদেক (৮০-১৪৮ হি.) এটিকে ‘যেনা’ বলে অভিহিত করেছেন। (বায়হাক্বী ৭/২০৭)

والله اعلم بالصواب
উত্তর দিয়েছেন
 শায়েখ উমায়ের কোব্বাদী
আরো পড়ুন–

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

sixteen + 15 =